ফাইল ছবি৷

কলকাতা: হরিয়ানাতে ইতিমধ্যেই ক্ষমতায় রয়েছে বিজেপি৷ বিধানসভায় ৯০টি আসনের মধ্যে বিজেপির দখলে ৪৮টি৷ জোটসঙ্গী শিরোমণি অকালিদল ১টি আসন পেয়েছে৷ উত্তর ভারতের এই রাজ্যে ইতিমধ্যেই বেশ শক্তিশালী বিজেপি৷ বিরোধী কংগ্রেস, জাতীয় লোকদল, বহুজন সমাজ পার্টি এবং নির্দল জোটের কাছে রয়েছে মোট ৩৮টি আসন৷ সেক্ষেত্রে ওই রাজ্যে বিজেপির সরকারও খুব মজবুত জায়গায়৷

এই পরিস্থিতিতে রাজ্যের ১০টি লোকসভা কেন্দ্রতেই জয়ের লক্ষ্যে হরিয়ানাতে নীল-নক্সা সাজিয়েছে বিজেপি৷ বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ হরিয়ানাতে ব্যাপক প্রচার চালাবেন৷ ইতিমধ্যেই তাঁর প্রচারের কর্মসূচীও তৈরি হয়ে গিয়েছে৷ কেন্দ্রীয় বিজেপি জানিয়েছে, সোনিপত, কারনাল, অম্বালা, হিসার, ভিওয়ানি-মহেন্দ্রগড় এবং ফরিদাবাদে প্রচার চালাবেন অমিত৷ হরিয়ানায় ১২ মে নির্বাচন হবে৷ হরিয়ানা বিজেপির সভাপতি সুভাষ বার্নালা জানান, ‘‘রাজ্যে ৫ মে এবং ১০ মে – এই দুই দিন জনসভা করবেন অমিত শাহ৷ ৬টি জায়গায় জনসভা হবে৷ ’’

কেন্দ্রীয় বিজেপি সূত্রে খবর, শুধু অমিত শাহই নয়, হরিয়ানায় প্রচার করতে পার্টির একটি বিশেষ দল ইতিমধ্যেই হরিয়ানায় রওনা হয়েছে৷ যা খবর, ২৪ জব নেতা ওই দলে রয়েছে৷ উল্লেখযোগ্য নাম, উত্তরাখণ্ডের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী রমেশ পোখরিওয়াল৷ হরিয়ানা ছাড়াও তিনি আরও চার রাজ্যে প্রচার করবেন৷ বিজেপি নেতা কেদার যোশী, বদ্রীনাথ, বিধায়ক মহেন্দ্র ভাট ইতিমধ্যেই বিভিন্ন জনসভা করেছেন৷ পার্টির সাধারণ সম্পাদক নরেশ বানসাল বলেন, ‘‘পার্টি নেতাদের উদ্দেশ্য পরিষ্কার৷ বিজেপিতে হরিয়ানায় ১০টি আসন দিতেই হবে৷ রাজ্যে মানুষ বিজেপির সঙগ্গে রয়েছে৷ দসটি আসনে বিজেপি জিতবে এ ব্যাপারে আমরা নিশ্চিত৷’’সূত্রের খবর উত্তারাখণ্ড থেকে বিজেপির নেতারা শুধু হরিয়ানাই নয় ছত্তিশগড়, হিমাচল প্রদেশ এবং পশ্চিমবঙ্গেও প্রচারে গিয়েছেন৷

সমগ্র লোকসভা নির্বাচনে উত্তর ভারতের থেকে পূর্ব এবং উত্তরপূর্ব ভারতেই বিজেপির ভোট পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি তা অনেক আগেই জানিয়েছিলেন দেশের নির্বাচন বিশেষজ্ঞরা৷ যোগেন্দ্র যাদব বা যশবন্ত দেশমুখের মতো নির্বাচন বিশেষজ্ঞরা মনে করেন এই নির্বাচনে উত্তর ভারতের ঘাটতি পূর্বভারত থেকেই মেটানোর চেষ্টা করবেন অমিত শাহ৷ পশ্চিমবঙ্গ এবং ওড়িশা থেকে বেশি আসন তোলার নিরন্তর প্রচেষ্টা চলিয়েছে বিজেপি৷ পশ্চিমবঙ্গে নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহ প্রচুর জনসভা করেছেন৷ আরও করবে৷ বামফ্রন্ট জনতার ভোট যথেষ্ঠ গুরুত্বপূর্ণ৷

ওই বামজনতা একটি বড় অংশ নাকি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আটকাতে বিজেপির দিকেই ঢলে রয়েছে বলে মনে করছে অনেক বিশেষজ্ঞ৷ সেই কারণেই রাজ্যে বিজেপির শক্তিবৃদ্ধি হয়েছে৷ অন্য মতটি হল, বামফ্রন্টের মোদীবিরোধী অবস্থান থেকে তাদের একটি বড় অংশের ভোট মমতার দিকেই যাবে৷ সেক্ষেত্রে হরিয়ানার মতো রাজ্য যা উত্তর ভারতে কিছুটা চরিত্র বিরোধী হয়ে শাহ-মোদীর দিকেই ঝুঁকবে সেখানে ব্যাপক প্রচার চালিয়ে যেতে চাইছে বিজেপি৷