হাওড়া : পুরসভা ভোট এগিয়ে আসছে। তত নেতা নেত্রীদের এলাকার মানুষের কথা মনে পড়ছে। অনেকেই একটু আগে থেকে পাড়া ঘুরছেন, কেউ এলাকা ঘুরছেন , জনসংযোগ করছেন। এলাকা পরিষ্কার করার হঠাৎ বাসনা চাগাড় দিচ্ছে। ‘ভগবানকে নাম পে দুটো ভোট দে দে বাবা’ এমন সব ব্যাপার আর কি। সেই দলে বিজেপির উমেশ রাই।

শেষ পর্যন্ত মনে হয়েছে দূষণ বাড়ছে ঘুসুরিতে তাই সচেতন করতে হবে। জন সচেতনতার প্রমান দিতে তাই তারা বুধবার সকালে উত্তর হাওড়ার বেশ কয়েকটি স্কুলের সামনে তারা সচেতনতা কর্মসূচির আয়োজন করেন। নেতৃত্বে ছিলেন উমেশ রাই নিজে। দূষণের হাত থেকে বাঁচতে এদিন তারা স্কুলের ছাত্রছাত্রী, গাড়িচালক, পথচলতি মানুষের হাতে মাস্ক বিলি করেন।

এদিনের কর্মসূচি সম্পর্কে রাজ্য বিজেপি নেতা উমেশ রায় বলেন, ‘ঘুসুড়ি যেভাবে পলিউটেড এলাকা হিসেবে সারা রাজ্যের মধ্যে সবার আগে জায়গা করে নিয়েছে এই বিষয়ে আমরা খুবই চিন্তিত। যেভাবে এখানে দূষণ বেড়েছে তাতে আগামী দিনে সাধারণ মানুষের ভবিষ্যৎ কী হবে শিশুদের ভবিষ্যৎ কী হবে সে বিষয়ে আমরা খুবই উদ্বিগ্ন। সেই কারণেই আমরা আজকে উত্তর হাওড়ায় এম সি কেজরিওয়াল স্কুলের সামনে ছোট ছোট শিশুদের হাতে মাস্ক তুলে দিয়েছি। অভিভাবকদের বলেছি, ভবিষ্যতের এরা স্কুল থেকে শিক্ষিত হয়ে উচ্চ ডিগ্রি নিয়ে পাশ করে বেরোনোর পর কেউ ডাক্তার কেউ ইঞ্জিনিয়ার বা কেউ অন্য পেশায় যাবে। কিন্তু তাদের শরীর স্বাস্থ্য কতটা এদের সুরক্ষিত থাকবে সে বিষয়ে আমরা খুবই উদ্বিগ্ন। এই দূষণ নিয়ে সকলকে সতর্ক থাকার বার্তা দিলাম এই কর্মসূচির মাধ্যমে।’

শহরে বাড়ছে দূষণ। রিপোর্ট বলছে বায়ুদূষণে রাজ্যের মধ্যে সবার আগে রয়েছে হাওড়ার ঘুসুড়ি। এদিন তাই বিজেপি যুবকর্মীরা স্কুল পড়ুয়া সহ প্রায় এক হাজার জনের হাতে মাস্ক তুলে দেন। গত ২৩ জানুয়ারি রাজ্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ জানিয়েছে বায়ুদূষণে সারা পশ্চিমবাংলার মধ্যে হাওড়ার ঘুসুড়ির স্থান সবার আগে। সম্প্রতি বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় এই নিয়ে সংবাদ পরিবেশিত হয়েছে।

পদ্মের যুব নেতারা জানাচ্ছেন , তাঁরা এই কারণেই বুধবার সকালে এই মাস্ক বিলি কর্মসূচি করেছিলেন। এদিন ৫০০টি ওয়াশেবল মাস্ক স্কুল পড়ুয়াদের মধ্যে এবং ৫০০টি ডিসপোজাল মাস্ক গাড়ি চালকদের মধ্যে বিলি করা হয়। লিলুয়ার অগ্রসেন, সোহনলাল, ডনবস্কো, কেজরিওয়াল, আই পি মেমোরিয়াল স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের এই মাস্ক বিতরণ করা হয়। উমেশ রাইয়ের কথায় , ‘এখানে নিকাশি নালা পরিস্কার নয়, কলকারখানার ধোঁয়ায় পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। অথচ সরকারের কোনও ভ্রূক্ষেপ নেই। তাই আমরা প্ল্যাকার্ড নিয়ে প্রচার করে মানুষকে সচেতনও করলাম।’