নয়াদিল্লি: ‘চৌকিদারে’র বিরুদ্ধে চুরির অভিযোগ তুলেছে কংগ্রেস৷ জাবাব দিল বিজেপি৷ গেরুয়া শিবিরের পালটা প্রশ্ন কেথায় গেলেন রাহুল গান্ধী? কেন এদিন তাকে দেখা গেল না? বিজেপির দাবি এর থেকেই স্পষ্ট হাত শিবিরের অভিযোগের কোনও সত্যতা নেই৷

আরও পড়ুন: রহস্যময় ডায়েরিতে বিজেপি নেতাদের বিরুদ্ধে ১৮০০ কোটি ঘোটালার অভিযোগ

এদিন দুপুরের ১৮০০ কোটি টাকার অবৈধ লেনদেন সংক্রান্ত অভিযোগ তোলেন কংগ্রেস মুখপাত্র রণদীপ সিং সুরজেওয়ালা৷ নিশানায় প্রধানমন্ত্রী থেকে অন্যান্য কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা জড়িত৷ কর্ণাটকের বিজেপি সরকারের মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন ইয়েদুরাপ্পা ১৮০০ কোটি টাকার এই অবৈধ লেনদেন কেন করেছিলেন তার জন্য সর্বোচ্চস্তরের আইনি তদন্তের দাবি তুলেছে কংগ্রেস৷

কংগ্রেসের এই অভিযোগের পরপরই শুক্রবার বিকেলে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন বিজেপি নেতা রবিশংঙ্কর প্রসাদ৷ গেরুয়া শিবিরের করফে সুজেওয়ালার করা অভিযোগ উড়িয়ে দেওয়া হয়৷ কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বলেন, ‘‘যে লাল গোপণ লাল ডায়েরির কথা বলা হচ্ছে সেখানে কর্নাটকের প্রাক্ত মুখ্যমন্ত্রী ইয়েদির সই নেই৷’’ মিথ্যের উপর ভর করে কংগ্রেস রাজনীতি করছে বলেও এদিন অভিযোগ করেন রবিশঙ্কর প্রসাদ৷

আরও পড়ুন: বিজেপির প্রথম তালিকায় রয়েছে ৩৫ জন অভিযুক্ত অপরাধী

রহস্যজনক ডাইরি ‘ইয়েদি ডায়েরি’ বলেই লিখেছে কংগ্রেস মুখপত্র ন্যাশনাল হেরাল্ড৷ এছাড়াও একটি সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবরের ভিত্তিতে রণদীপ সুরজেওয়ালার অভিযোগ, এই ডাইরির পাতায় পাতায় রয়েছে বিভিন্ন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর নাম৷ এতে অন্তত ১২ জন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর নাম রয়েছে বলেই জানা গিয়েছে৷ অভিযোগ ১৮০০ কোটি টাকার মধ্যে অন্তত ১০০০ কোটি টাকা বিজেপির নেতাদের মধ্যে বণ্টনের কথা বলা হয়েছে ডায়েরিতে৷

আরও পড়ুন: ভোটের লক্ষ্যে নাগরিকত্ব সংশোধনী নিয়ে মতুয়াদের ভুল বোঝাচ্ছে বিজেপি: কংগ্রেস

রাফায়েল ইস্যুতে ‘চৌকিদার চোর হ্যায়’ বলে বারে বারে অভিযোগ তুলছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী৷ লোকসভার আগে ফের আর্থিক দুর্নীতির অভিযোগ আনা হল দেশের প্রাচীন এই রাজনৈতিক দলের তরফে৷ যা নস্যাৎ করেছে পদ্ম শিবির৷ আলোড়িত কেন্দ্রীয় রাজনীতি৷