নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: রণক্ষেত্র দমদম৷ শেষ দফার ভোট আগামী ১৯ মে৷ আর তার ঠিক আগে প্রচারের শেষ দিন আজ বৃহস্পতিবার৷ আর বৃহস্পতিবার রাতেই উত্তপ্ত হয়ে উঠল নাগের বাজার এলাকা৷ নাগেরবাজারে একটি গেস্ট হাউসের সামনে বিক্ষোভে চরম আকার ধারাণ করে নাগেরবাজারের পরিস্থিতি৷ বিক্ষোভকারীদের অভিযোগ, বিজেপির মুকুল রায় এবং সিপিএমের এক নেতা বিশাল অঙ্কের টাকার লেনদেন করছে৷

ওই গোপন বৈঠকে শমীক ভট্টাচার্যও রয়েছেন বলে অভিযোগ৷ আর এরপরই শমীক ভট্টাচার্যের গাড়ি ভাঙচুর করা হয়৷ মোট ৩ টি গাড়ি এখনও পর্যন্ত ভাঙচুর করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে৷ এই ভাঙচুরের ঘটনায় তৃণমূলের হাত রয়েছে বলে জানা গিয়েছে৷ এদিকে ঘটনাস্থলে পুলিশবাহিনী এসে উপস্থিত হয় বলে জানা যায়৷ পরিস্থিতি চরম আকার ধারণ করে৷ তা নিয়ন্ত্রণে হাজির হয় বিশাল কেন্দ্রীয়বাহিনী৷

পড়ুন: শুক্র ভালো যাবে না মন্দ, জানাবে ‘আজকের রাশিফল’

এই বিষয়ে বৈদ্যুতিন সংবাদ মাধ্যমকে ফোনে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন, ‘মুকুল রায় সিপিএমের প্রাক্তন নেতা পল্টু দাশগুপ্ত এবং শমীক ভট্টাচার্য বৈঠক করছিলেন৷ টাকার লেনদেন করছিলেন৷ সিমপ্যাথি ড্র করার খেলায় নেমেছে৷ টাকার ডিল হচ্ছিল৷ ছেলেদের বলেছিল, পুলিশকে জানাও, নির্বাচন কমিশন বিষয়টি দেখবে৷ ওই বিক্ষোভে তৃণমূলের কর্মীরা নেই৷ বিজেপির কর্মীদের ডেকেই নিজেদেরই গাড়ি ভাঙচুর করিয়েছে৷ বিদ্যাসাগর কাণ্ডের পর এই সিমপ্যাথি ড্র করার খেলা চলছে৷ মুকুল রায় গল্প তৈরি করার মাস্টার৷ তিনি গল্প তৈরি করছেন৷’

এদিকে, সিপিএম বিধায়ক তন্ময় ভট্টাচার্য বলেন, ঘটনার সত্যাসত্য তিনি জানেন না৷ সেই সঙ্গে তাঁর প্রশ্ন, ‘জ্যোতিপ্রিয় বাবু কী করে জানলেন টাকার লেনদেন হয়েছে? তাঁর লোক ছিল সেখানে? পল্টু দাশগুপ্ত আগে সিপিআইএমের নেতা ছিলেন, কিন্তু এখন এই নামে পার্টতে কোনও নেতা নেই৷’