কলকাতা: শেষ দফার ভোটের দিনে রাজ্যের শাসক তৃণমূলের বিরুদ্ধে চাঞ্চল্যকর অভিযোগ করলেন দক্ষিণ কলকাতা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী চন্দ্র কুমার বসু।

রবিবার সকাল থেকে শুরু হয়েছে সপ্তম তথা অন্তিম দফার ভোট গ্রহণ। সমগ্র দেশের ৫৯টি লোকসভা কেন্দ্রে চলেছে ভোট গ্রহণ। এদিন রাজ্যের তিন জেলার নয় কেন্দ্রে চলছে ভোট গ্রহণ।

এই নয় কেন্দ্রের মধ্যে রয়েছে দক্ষিণ কলকাতা কেন্দ্র। যে কেন্দ্রের ভোটার এবং প্রার্থী হচ্ছেন চন্দ্র কুমার বসু। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামও ওই কেন্দ্রের ভোটার তালিকায় রয়েছে।

এদিন সকালে নিজের ভোট দিয়ে বেরিয়ে তৃণমূলের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ করেছেন সম্পর্কে নেতাজির পৌত্র তথা বিজেপি প্রার্থী চন্দ্রবাবু। তিনি বলেছেন, “গতরাতে আমি আমাদের অনেক কর্মীদের থেকে ফোন পেয়েছি। তাঁদেরকে তৃণমূলের জিহাদি ব্রিগেড হুমকি দিচ্ছে। বিজেপির এজেন্ট হয়ে বুথে বসলে খুন করে দেওয়া হবে বলে হুমকি দেওয়া হচ্ছে।” একই সঙ্গে তিনি আরও বলেছেন, “জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের কোনও পার্থক্য নেই।”

চন্দ্র কুমারের পরিচয় তিনি নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর পরিবারের সদস্যদের একজন। তিনি নেতাজির প্রপৌত্র। আগেও এই কেন্দ্র থেকে বিজেপি প্রার্থী হিসাবে লড়াই করেছেন। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত দক্ষিণ কলকাতা। নরেন্দ্র মোদী স্বয়ং তাঁর উপর ভরসা রাখছেন।

দক্ষিণ কলকাতার ভোটারদের খোলা চিঠি লিখেছেন বিজেপি প্রার্থী চন্দ্র কুমার বসু। হাতে লেখা সেই চিঠি ইতিমধ্যেই পৌঁছে গিয়েছে ভোটারদের লেটার বক্সে। চন্দ্রকুমারের কথায় চিঠিটি আদতে ভোটার স্লিপ, যা রাজনৈতিক দলের হয়ে নির্বাচনের কিছু আগেই বাড়ি বাড়ি দেওয়া হয় থাকে। সেখানেই নিজের অক্ষরে চন্দ্র কুমার লিখে দিয়েছেন মনের কথা। লিখেছেন কেন তাঁকে ভোট দেওয়া উচিত। কেন নরেন্দ্র মোদীকেই আবার প্রধানমন্ত্রী হিসাবে ফিরে পাওয়া উচিত ভারতের।

চন্দ্র কুমারের হাতে লেখা বাংলা, ইংরেজী, হিন্দি ভাষার চিঠির প্রতিলিপিতেই ছাপা হয়েছে ভোটার স্লিপ। কিন্তু হাতে লেখা চিঠিই কেন? চন্দ্র কুমারের কথায়, “আমি পুরোনো দিনের মানুষ। আমার কাছে চিঠির গুরুত্ব আলাদা। আমি হৃদয় থেকে মানুষের কাছে আবেদন করেছি।”