স্টাফ রিপোর্টার, বালুরঘাট: অন্যান্য কর্মীদের মতো সকাল সকাল দলের হয়ে ভোট দিতে যাচ্ছিলেন বালুরঘাট কুশমন্ডি চাদপুর এলাকার বিজেপি কর্মী রঞ্জিত বর্মণ৷ কিন্তু পথে তাঁর উপর হামলা করে কিছু দুষ্কৃতী৷ গুরুতর আহত হন তিনি৷ পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয়৷ তাঁকে উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসা করান পুলিশ কর্মীরা৷ তারপরই নিরাপত্তার সঙ্গে চাদপুর বুথে পৌঁছে দেন রঞ্জিত বাবুকে৷

জানা গিয়েছে, শুধু তাঁর উপরেই হামলা নয়৷ তার বাড়িতেও ভাঙচুর চালিয়েছে দুষ্কৃতীরা৷ ঘটনাকে ঘিরে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায়৷ তৃতীয় দফায় বালুরঘাট কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ পর্ব শুরু হয়েছে৷ শুরু দিকে বাকি জেলাগুলির তুলনায় শান্তিপূর্ণ হলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে বালুরঘাট৷

খবর পাওয়া যায় বুথে ইভিএম মেশিন খারাপ৷ আবার কোথাও বিজেপি এজেন্টদের বুথে ঢুকতে না দেওয়ার ঘটনা৷ সব মিলিয়ে অরজগতা সৃষ্টি হয়েছে বালুরঘাটে৷ এবার বালুরঘাটে তৃণমূল প্রার্থী অর্পিতা ঘোষ, কংগ্রেসের হয়ে লড়াই করছেন আব্দুস সাদেক সরকার, বামফ্রন্ট প্রার্থী রণেন বর্মন ও বিজেপির টিকিট পেয়েছেন ডঃ সুকান্ত মজুমদার৷

দলের লোকেদের ভুলভ্রান্তির কারণে ২০১৬’র বিধানসভা নির্বাচনে দাক্ষিণ দিনাজপুরের মাত্র দুটি আসন পেয়েছিল তৃণমূল। চারটিতে জয়ী হয়েছিল অন্যরা। কিন্তু যে চারজনকে সেবার জেতানো হয়েছিল তাঁরা কেউই কোন কাজ করেননি। দক্ষিণ দিনাজপুরে উন্নয়নমূলক যত কাজ হয়েছে তার সবটাই তৃণমূল করেছে।

এমনটাই দাবি করেছিলেন বালুরঘাট কেন্দ্রের দলীয় প্রার্থী অর্পিতা ঘোষের হয়ে প্রচারে আসা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। তাই এবারেও বালুরঘাট কেন্দ্র থেকে ফের অর্পিতা ঘোষকে জেতানোর জন্য জেলার মানুষের কাছে আবেদন করেছিলেন তিনি। তবে এখন শুধু অপেক্ষা ২৩ মে৷ দেখার বিষয় বালুরঘাট কেন্দ্রে শেষ হাসিটা তৃণমূল হাসতে পারে কিনা৷