চণ্ডীগড়- কুস্তির আখড়ায় প্রতিপক্ষকে কুপোকাত করতে সিদ্ধহস্ত ববিতা ফোগাট। কিন্তু রাজনীতির ময়দানে একই রকম প্রভাব বিস্তার করতে পারলেন না তিনি। কমনওয়েলথে সোনার পদকজয়ী ববিতা এবছর অগাস্টে বিজেপিতে যোগদান করেন। হরিয়ানার বিধানসভায় দাদরি কেন্দ্র থেকে বিজেপির হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন ববিতা। ববিতাকে নিয়ে বিজেপি শিবিরে ইতিবাচক আশা থাকলেও শেষ পর্যন্ত রাজনীতির আখড়ায় প্রতিপক্ষকে কুপোকাত করতে পারলেন না তিনি।

দাদরিতে বিজেপির মূল প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন জেজেপি-র সোমবির সংগওয়ান। একটু অতীত ঘাঁটলেই দেখা যায় এই কেন্দ্রে লোকসভা নির্বাচনেও বিজেপি কখনও জায়গা করে নিতে পারেনি। নতুন করে রেকর্ড গড়তে পারলেন না ববিতাও।

ববিতাকে নিয়ে তৈরি ছবি দঙ্গল বিশেষ সাড়া ফেলেছিল দেশে। তাই বিজেপির-ও আশা ছিল ববিতাকে নিয়ে। সেইজন্যই এবছর বিজেপি থেকে প্রার্থী দাঁড়ানোর টিকিট পেয়েছিলেন তিনি। ববিতা এই প্রসঙ্গে বলেন, যাঁরা আমায় সমর্থন করেছেন তাঁদের ধন্য়বাদ। আমি যে সম্মান পেয়েছি, তার জন্য ধন্যবাদ। বিজেপির কাজে মানুষের ভরসা রয়েছে আর তাই মানুষ ভোট দেয়। এই কেন্দ্র থেকে সোমবির এগিয়ে আছে।

অন্যদিকে ক্রীড়াজগৎ থেকে আরও একজনকে নির্বাচনে প্রার্থী দাঁড়ানোর টিকিট দিয়েছিল বিজেপি। তিনি হলেন যোগেশ্বর দত্ত। হরিয়ানার বদাউদা বিধানসভা কেন্দ্র থেকে প্রার্থী হিসেবে দাঁড়িয়েছিলেন অলিম্পিকে পদকজয়ী যোগেশ্বর দত্ত। তাঁর মূল প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন কংগ্রেস প্রার্থী শ্রীকৃ্ষ্ণ হুড্ডা। তাঁর কাছে পরাজিত হয়েছেন যোগেশ্বর।

কুস্তিগীর ববিতা ও যোগেশ্বর ছাড়াও হকি খেলোয়াড় সন্দীপ সিংকেও বিজেপি টিকিট দিয়েছিল। সন্দীপও রাজনীতিক লড়াইয়ে এখনও পর্যন্ত পিছিয়ে আছে বলে জানা গিয়েছে।