কলকাতাঃ  ২০১৪-তে বাংলায় মাত্র ২টি আসনে জয়ী হয়েছিল বিজেপি। তারপর জল গড়িয়েছে অনেক। বরাবরই বাংলাকে পাখির চোখ করেছিল গেরুয়া শিবির। মুকুলের দলবদলের পর গেরুয়া শিবিরের সমীকরণ পাল্টাতে শুরু করে অনেকটাই। আর এবার ১৮টি আসন আসছে বিজেপির হাতে। আর সেটাই নতুন করে অক্সিজেন যোগাচ্ছে গেরুয়া শিবিরে।

এই ১৮টা আসনই যে বাংলায় আগামিদিনে বিজেপিকে নতুন করে উৎসাহ যোগাচ্ছে, বৃহস্পতিবার অমিত শাহের বক্তব্য থেকে তা স্পষ্ট হয়। ফল প্রকাশের দিন সন্ধেয় বিজেপি হেডকোয়ার্টার থেকে বক্তব্য রাখেন মোদী ও অমিত শাহ। বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহের বক্তব্যের মাঝেই উঠে আসে বাংলার কথা। সন্ধে পর্যন্ত ১৮টি আসনে এগিয়ে বিজেপি। তাই সেই ১৮টি আসনের কথাই উল্লেখ করেন অমিত শাহ।

দেখে নিন তৃণমূলকে রুখে দিয়ে কোন ১৮টি আসন গেল বিজেপির হাতে-

আলিপুরদুয়ার-জন বার্লা, আসানসোল-বাবুল সুপ্রিয়, বালুরঘাট-সুকান্ত মজুমদার, বনগাঁ-শান্তনু ঠাকুর, বাঁকুড়া-সুভাষ সরকার, বারাকপুর-অর্জুন সিং, বিষ্ণুপুর-সৌমিত্র খাঁ, বর্ধমান-দুর্গাপুর- সুরেন্দ্র সিং আলুওয়ালি, কোচবিহার-নিশীথ প্রামাণিক, দার্জিলিং-রাজু বিস্তা, হুগলি-লকেট চট্টোপাধ্যায়, জলপাইগুড়ি-জয়ন্ত কুমার রায়, ঝাড়্গ্রাম-কুনার হেমব্রম, মালদহ(উত্তর)-খগেন মুর্ম, মেদিনীপুর-দিলীপ ঘোষ, পুরুলিয়া-জ্যোতিময় সিং মাহাতো, রায়গঞ্জ-দেবশ্রী চৌধুরী এবং রাণাঘাট- জগন্নাথ সরকার।