নয়াদিল্লি: কৃষক বিক্ষোভ যত দানা বাঁধছে, ততই চাপ বাড়ছে বিজেপির উপর। জোট সঙ্গীরা একে একে বেরিয়ে যাচ্ছে অথবা বের হবে বলে হুমকি দিচ্ছেন। ইতিমধ্যেই কৃষি আইনের প্রতিবাদে অকালি দল এনডিএ ছেড়েছে। এবার তেমন হলে এনডিএ ছাড়ার হুমকি দিলেন রাজস্থানের সাংসদ তথা রাষ্ট্রীয় লোকতান্ত্রিক দলের প্রধান হনুমান বেনিওয়াল।

তিনিও কেন্দ্রের কাছে দাবি করেছেন, কৃষক বিরোধী তিনটি কৃষি আইন প্রত্যাহার করার। পাশাপাশি শরিক দলের এই নেতা কেন্দ্রের কাছে অনুরোধও জানিয়েছেন, দ্রুত কৃষকদের সঙ্গে আলোচনায় বসার। এই মর্মে বেনিওয়াল টুইট করেছেন, গোটা দেশ জুড়ে কৃষকরা যখন বিক্ষোভে সামিল হচ্ছেন, তখন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ অবিলম্বে তিনটি কৃষি আইন প্রত্যাহার করুন।

তিনি স্বামীনাথন কমিশনের সুপারিশ কার্যকর করার অনুরোধ করছেন কেন্দ্রকে। তাছাড়া, দ্বিতীয় টুইটে বেনিওয়াল হুমকি দিয়েছেন, এনডিএ–র শরিক আমরা। কিন্তু আমাদের দেশের শক্তি কৃষক এবং জওয়ানরা। তাই এই বিষয়ে দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে হবে তার না হলে আমরা এনডিএ–র সঙ্গে থাকব কিনা ভেবে দেখব। সে ক্ষেত্রে কৃষকদের স্বার্থ সবার আগে দেখতে হবে।

কৃষি আইনের প্রতিবাদে গত সেপ্টেম্বর মাসেই শিরোমণি অকালি দল এনডিএ জোট ছেড়ে বেরিয়ে এসেছিল। এবার দেখা গেল রাষ্ট্রীয় লোকতান্ত্রিক দলও এনডিএ ছাড়ার হুমকি দিল। গত রাজস্থান বিধানসভা ভোটে বিজেপির সঙ্গে জোট করেছিল এই রাষ্ট্রীয় লোকতান্ত্রিক দলটি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।