ফারাক্কা: ভোটার কার্ড না আধার কার্ড, কোনটি নাগরিকদের পরিচয়পত্র তা নিয়ে দেশে নতুন ধন্ধ তৈরি হয়েছে। সেই আবহেই আসতে পারে এনআরসি। সেইরকম সময় ভোটার কার্ডে ভূল ছবি তৈরি করতে পারে পরিচয় সংকট। এইরকম ঘটনার শিকার মুর্শিদাবাদের এই ব্যাক্তি। দীর্ঘদিন অপেক্ষার পর ভোটার কার্ড হাতে পেলেন যেখানে দেখা গেল কুকুরের ছবি।

সুনীল কর্মকার, মুর্শিদাবাদের রামনগরের বাসিন্দা জানুয়ারির ৮ তারিখ ভোটার কার্ডের আবেদন করেছিলেন সেখানে তিনি জন্মের তারিখ পরিবর্তন করতে চেয়েছিলেন। সেখানে ভূল তথ্যের উল্লেখ ছিল। কুকুরের ছবি দেওয়া ভোটার কার্ড দেখে সুনীল অপমানিত বোধ করেন। স্বাভাবিকভাবেই রেগে যান যে দেশের নির্বাচন কমিশন একজন দেশের নাগরিককে কুকুর বানিয়ে দিয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে সুনীল কর্মকার জানিয়েছেন, “গতকাল আমাকে এই ভোটার কার্ডটি দেওয়া হয়েছে যেখানে এই ছবি আমি দেখতে পাই। একজন অফিসার আমাকে সই করে এই কার্ড আমাকে দিয়েছে এবং উনি নিজেও দেখেননি। আমার মানসম্মান নিয়ে সকলে খেলা করছে। আমি বিডিও অফিসে যাব এবং আবেদন জানাবো যাতে এই ঘটনার পুনরাবৃত্তি যাতে না ঘটে”।

ফারাক্কার বিডিও রাজর্ষি চক্রবর্তী এই ভূল স্বীকার করেছেন এবং বলেছেন ভোটার কার্ড ঠিক করে দেওয়া হবে, সঠিক ছবির মাধ্যমে শীঘ্রই তিনি আবার পরিচয়পত্র পাবেন”।

তিনি আরও বলেন, “আমরা এই ঘটনা শোনার পরেই তদন্ত করেছি। জানুয়ারি মাসে আবেদন জমা পরেছিল, এপ্রিল মাসে তাঁকে নতুন ভোটার কার্ড দেওয়া হবে। এইবার আর কোন ভূল সেখানে থাকবে না”।

মঙ্গলবার সকালে নিজের হাতে ভোটার কার্ড পেয়েছেন ফারাক্কার এক বাসিন্দা। কার্ড দেখতে গিয়ে অবাক। ভোটার কার্ডে ছবির জায়গায় রয়েছে একটি কুকুরের ছবি। এহেন ঘটনা ঘটেছে ফারাক্কার বেওয়া ২ গ্রাম পঞ্চায়েতে।

এই ঘটনার পরে রীতিমত ক্ষুব্ধ ওই বাসিন্দা। ঠিক করেছেন মানহানির মামলা করবেন। তিনি জানিয়েছেন তাঁকে এই ভাবে অপমান করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশন তাঁকে পশু হিসেবে গন্য করেছে।

ভোটার কার্ডে বানান ভুল বা ঠিকানা ভুল স্বাভাবিক। কিন্তু ছবি ভুল হওয়ার ঘটনাতে রীতিমত তাজ্জব। ৪০ নম্বর বুথের এক কর্মী জানিয়েছেন ওই ব্যাক্তি সংশোধনের জন্য ফর্ম জমা দিয়েছিলেন। সেখানেই দেখা গিয়েছিল ওই ব্যাক্তির ছবির জায়গায় রয়েছে কুকুরের ছবি। আর তারপরেই ওই ব্যাক্তির তড়িঘড়ি পাসপোর্ট ছবি আনানর নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। তারপরেও এই জাতীয় ভুল কি করে হল তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন।