কলকাতা: এবার ৭৯টি পুজো কমিটিকে শারদ সম্মান দিল বিশ্ববাংলা। এজন্য শুক্রবার মহাষষ্ঠীর দিনে, তথ্য-সংস্কৃতি দফতরের প্রতিমন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেন এই শারদ সম্মান পুরস্কারের তালিকা ঘোষণা করেন। সেই তালিকা অনুসারে সেরার সেরা পুরস্কার পেল ২৭টি পুজো কমিটি। এদিকে সেরা মণ্ডপ হিসেবে পুরস্কৃত হল চারটি পুজো মণ্ডপ। পাশাপাশি সেরা প্রতিমার জন্য তিনটি পুজো কমিটি পুরস্কৃত হয়েছে। তাছাড়া চারটি পুজো আলোকসজ্জার জন্য পুরস্কার পেয়েছে । ছ’টি সাবেকি পুজোকে সেরার সেরা হিসেবে বাছা হয়েছে। সেরা ভাবনার জন্য সাতটি পুজো মণ্ডপ পুরস্কার পেয়েছে। এ ছাড়া বিশ্ববাংলা বিশেষ পুরস্কার পেয়েছে ২২টি পুজো কমিটি। সেরা পরিবেশবান্ধব তিনটি পুজোকে বেছে নেওয়া হয়। সুরুচি সঙ্ঘের ঝুলিতে রয়েছে সেরা থিমসং-এর খেতাব ।

এবারের এই শারদ সম্মানে পুরস্কার প্রাপকের তালিকায় সেরার সেরা যে ২৭টির পুজো রয়েছে, সেগুলি হল- বড়িশা ক্লাব, চেতলা অগ্রণী, সুরুচি সঙ্ঘ, কালীঘাট মিলন সঙ্ঘ, নাকতলা উদয়ন সঙ্ঘ, একডালিয়া এভারগ্রিন, শ্রীভূমি স্পোর্টিং ক্লাব, চক্রবেড়িয়া, ত্রিধারা, বেহালা নতুনদল, টালা প্রত্যয়, দমদম তরুণদল ইত্যাদি পুজো। এদিকে মণ্ডপ হিসেবে রয়েছে- বাবুবাগান, রাজডাঙা নবোদয় সঙ্ঘ, উল্টোডাঙা তেলেঙ্গাবাগান, নতুনদল। সেরা প্রতিমার জন্য পুরস্কৃত হয়েছে- সেলিমপুর পল্লি, কালীঘাট মিলন সঙ্ঘ, যোধপুর পার্ক শারদীয়া দুর্গোৎসব। অন্যদিকে সেরা ভাবনার জন্য পুরস্কৃত পেয়েছে বাদামতলা আষাঢ় সঙ্ঘ, কসবা বোসপুকুর শীতলামন্দির, অজেয় সংহতি, কসবা বোসপুকুর তালবাগান, ভারতচক্র, ভবানীপুর ৭৫ পল্লি এবং নলিন সরকার স্ট্রিট।

আবার সেরা পরিবেশ বান্ধব ক্যাটিগরিতে পড়েছে- বাঘাযতীন বি অ্যান্ড সি ব্লক, পূর্বাচল শক্তিসঙ্ঘ, সন্তোষপুর লেকপল্লি। বাগবাজার সর্বজনীন সেরা ঢাকেশ্রী পুরস্কার পেয়েছে। সেরা ব্র্যান্ডিং-এর ক্ষেত্রে রয়েছে আলিপুর সর্বজনীন। সেরা থিম সং পুরস্কার পেয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের লেখা সুরুচি সঙ্ঘের ভাবনা সঙ্গীত। বিশ্ববাংলায় পুরস্কার পাওয়া পুজোগুলি রেড রোডের কার্নিভালে স্থান পায়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে সরকারি উদ্যোগে এই পুরস্কার দেওয়া চালু হয়েছে।