স্টাফ রিপোর্টার, বীরভূম: বীরভূমে অনুব্রত মণ্ডল মানে সকলের কাছেই ত্রাস৷ বীরভূম জেলা সভাপতি হওয়ার সুবাদে গোটা জেলাটাই নিজের হাতের মুঠোয় রেখেছেন অনুব্রত৷ রাজ্যের প্রধান বিরোধী শক্তি বিজেপিও তাঁর বিরুদ্ধে রোজ নিত্য নতুন অভিযোগ করে থাকে কমিশনে৷ অনুব্রতর একাধিক মন্তব্যে ইতিমধ্যেই জেরবার নির্বাচন কমিশন তাঁকে শোকজও করেছে৷ কিন্তু কে শোনে কার কথা! অনুব্রত রয়েছেন নিজের দাপটেই৷ ভোট কিভাবে করাতে হয় তিনি দেখাবেন বীরভূমে বলেই দাবি তাঁর৷

চতুর্থ দফা অর্থাৎ ২৯ এপ্রিল বীরভূম কেন্দ্রের নির্বাচন৷ আর মাত্র ২দিন বাকি৷ অভিযোগ তার আগেই শুরু হয়ে গিয়েছে বীরভূমের ত্রাস অনুব্রতর হুমকি৷ তবে অনুব্রতর বিরুদ্ধে এবারের এই অভিযোগ বিরোধী গোষ্ঠীর নয়, খোদ ভোট কর্মীদেরই৷ শনিবার ভোটকর্মীদের একটি মঞ্চ বীরভূমে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবিতে নির্বাচন কমিশনের দারস্থ হয়েছে৷ তাদের দাবি, ভোটের আগে অনুব্রতকে নজরবন্দি করতে হবে৷ নইলে সেখানে সুষ্টু নির্বাচন সম্ভব নয়৷

ভোটকর্মী ঐক্য মঞ্চের যুগ্ম আহ্বায়ক স্বপন মণ্ডল নির্বাচন কমিশনে এদিন একটি চিঠি দিয়ে জানিয়েছেন, ‘‘অনুব্রত মণ্ডল ভোট কর্মীদের হুমকি দিচ্ছেন শাসক দলের হয়ে ভোট করার জন্য৷ কোনও বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী সক্রিয় হলে তাদের সরিয়ে দেওয়ার নিদান দেওয়া হচ্ছে৷ ঐ নেতা হুমকি দিচ্ছেন ভোট কেন্দ্রে যাতে মাছিও গলতে না পারে৷’’

এদিন কমিশনের মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের সঙ্গে দেখা করেন ভোটকর্মীদের একাংশ৷ ভোটকর্মী ঐক্য মঞ্চের তরফে একটি চিঠি দেওয়া হয় মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকে৷ চিঠিতে অনুব্রত মণ্ডলকে গৃহবন্দি করে রাখার দাবি জানানো হয়। স্বপন মণ্ডলের আরও অভিযোগ, অনুব্রত একটা বাজে লোক৷ ও যা খুশি করতে পারে৷ ক্রমাগত আমাদের হুমকি দিচ্ছে৷ একটা আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে।

যদিও এই অভিযোগ খারিজ করেছে বীরভূমে তৃণমূলের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল৷ তাঁর দাবি, বিজেপির টাকা খেয়ে ওরা নির্বাচন কমিশনে নালিশ জানিয়েছে আমার বিরুদ্ধে৷ এর কোনও ভিত্ত নেই৷ ভোটের দিন বুথে বুথে যেমন থাকবে নকুলদানার ব্যবস্থা তেমনই পাচন, আদর ভালবাসাও থাকবে৷