স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: মেলেনি প্রশাসনিক অনুমতি৷ বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুরে বাতিল ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের নির্বাচনী জনসভা৷ যা ঘিরে শুক্রবার উত্তেজনা ছড়ায় বিষ্ণুপুরের কাঁকিল্যায়৷

এদিন সকালে কাঁকিল্যা সভাস্থলে জেলা প্রশাসনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখালেন বেশ কিছু বিজেপি কর্মী সমর্থক। তাদের দাবী জেলাপ্রশাসন সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যেই প্রতিবেশী রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের সভার অনুমোদন বাতিল করে দিয়েছে৷

বিষ্ণুপুর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী সৌমিত্র খাঁয়ের সমর্থনে শুক্রবার বিষ্ণুপুরের কাঁকিল্যা গ্রামের ফুটবল মাঠে নির্বাচনী জনসভা করার কথা ছিল। সেই মতো প্রয়োজনীয় প্রশাসনিক অনুমতি সাপেক্ষে মঞ্চ তৈরির কাজ প্রায় ছিল শেষের মুখে৷ দাবী বিজেপির৷ এরপর বৃহস্পতিবার রাতে জেলা প্রশাসনের তরফে সভার অনুমোদন বাতিল করা হয়। ফলে পণ্ড হয়ে যায় সভা৷

শুক্রবার এই ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে বিজেপি কর্মী সমর্থকরা কাঁকিল্যা গ্রামের ঐ মাঠে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন। তাদের প্রশ্ন, শেষ মুহূর্তে কেন সভা বাতিল করা হল? এবিষয়ে জেলাপ্রশাসনকে প্রশ্ন করা হলেও তারা সদুত্তর দিতে পারেননি। বর্তমানে ওই খেলার মাঠের মালিক ‘কাঁকিল্যা ইয়ুথ ইউনিটি’র মাঠে সভা করার প্রয়োজনীয় অনুমতি নেওয়ার পর পিডব্লুডি ও দমকল দফতরের অনুমতিপত্র প্রশাসনিক স্তরে জমা দেওয়া হয়েছিল। তারপর এই সভা বন্ধের পিছনে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য রয়েছে বলে অভিযোগ বিজেপির৷

বিজেপির বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলার যুব মোর্চার সাধারণ সম্পাদক তপন মজুরি বলেন, ‘‘একেবারে শেষ মুহূর্তে আমাদের দলের নেতা ও ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের সভা প্রশাসনিক অনুমতি না মেলার জেরে বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আমরা হতাশ।’’

ওই খেলার মাঠ স্থানীয় একটি ক্লাবের মালিকানাধীন দাবী করে তিনি বলেন, ‘‘জেলা প্রশাসন থেকে বলা হচ্ছে ওই মাঠটি অন্য চার জনের নামে রয়েছে। তাদের অনুমতি দরকার।’’ তিনি আরও বলেন, ‘‘এই ঘটনায় জেলা প্রশাসনের বিরুদ্ধে ধিক্কার জানাতেই এখানে আমরা।’’ অনেক ক্ষেত্রেই বিজেপিকে রাজনৈতিক কর্মসূচী করতে বাধা দেওয়া হচ্ছে অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, ‘‘জেলা প্রশাসন শাসক তৃণমূলের হয়ে কাজ করছে এই ঘটনা আবার তা প্রমাণ করলো।’’

খেলার মাঠটি নিজেদের মালিকানাধীন দাবী করে ‘কাঁকিল্যা ইয়ুথ ইউনিটি’র সভাপতি অশোক মুখার্জ্জী বলেন, ‘‘১৯৭০ সাল থেকে আমরা এই মাঠ দখল করে আছি। আগে এই মাঠের চার জন মালিক থাকলেও বর্তমানে কাঁকিল্যা ইউথ ইউনিটির নামে মাঠের রেকর্ড রয়েছে।’’

খেলাধুলা, যাত্রা, নাটক সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সভা সমিতির ক্ষেত্রে তারাই মাঠ ব্যবহারের অনুমতি দেন দাবী করে তিনি জানান, এর আগে তৃণমূল যুব সভাপতির সভার সময় প্রশাসন জোরপূর্বক অনুমতি আদায় করা হয়েছিল বলে তিনি অভিযোগ করেন। সেকারণে তারা সব রাজনৈতিক দলকেই সভা করার জন্য মাঠ ব্যবহারের অনুমতি দেন বলে তিনি জানান।

আরও পড়ুন: সপা হল ‘সমাপ্ত পার্টি’ আর বসপা হল ‘বিলকুল সমাপ্ত পার্টি’, যোগীর মন্ত্রী

এবিষয়ে বিষ্ণুপুরের মহকুমাশাসক মানস মণ্ডল বলেন, ‘‘নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত ওনারা প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা করতে পারেননি। কাঁকিল্যা গ্রামের খেলার মাঠটি চার জনের নামে রয়েছে। ক্লাবের নামে যদি সরকারীভাবে জমির রেকর্ড হয়ে থাকে সেই রেকর্ডের কপিও ওনারা জমা করতে পারেননি। সেই কারণেই সভার অনুমতি বাতিল করা হয়েছে৷’’