শঙ্কর দাস, বালুরঘাট: বিপ্লব মিত্রকে বাদ দিয়েই তৃণমূলের জেলা কমিটি ঘোষণা হলো। বৃহস্পতিবার বিকেলে বালুরঘাটে সাংবাদিক সম্মেলন করে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের ব্লক পুরসভা ও কোর কমিটির ঘোষণা করেন সভাপতি তথা বিধায়ক গৌতম দাস।

আট জনের কোর কমিটি তো দূর, জেলার কোনও কমিটিতেই বিপ্লব মিত্রর নাম না থাকায় হতাশ তাঁর অনুগামীরা। তৃণমূলের বর্ধিত কমিটিতেও বিপ্লব মিত্র স্থান না পাওয়ায় খোদ দলীয় কর্মীদের একাংশের মধ্যে নতুন করে জল্পনা শুরু হয়েছে।

এদিন বালুরঘাটের কাঁঠালপাড়া এলাকায় দলের জেলা কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সাংবাদিক সম্মেলনে সংবাদ মাধ্যমের প্রতিনিধিরা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন তৃণমূলের নতুন পুরাতন নেতা কর্মীরা।

প্রকাশিত কোর কমিটিতে সভাপতি গৌতম দাস সহ যে আট জনের নাম রয়েছে তাঁদের মধ্যে আছেন বর্ষীয়ান দুই নেতা আশীষ রায় শঙ্কর চক্রবর্তী তোরাব হোসেন বাচ্চু হাঁসদা সুভাষ চাকী ললিতা তিগ্গা জয়ন্ত দাস অম্বরীষ সরকার ও জয়ন্ত দাস।

অন্যদিকে জেলার বর্ষীয়ান আরেক নেতা বিপ্লব খাঁ সহ মোট ছয়জনকে সহ সভাপতি করা হয়েছে। পাশাপাশি প্রাক্তন চেয়ারম্যান রাজেন শীল সহ মোট পাঁচ জনকে সাধারণ সম্পাদকের পদ দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও জেলা কমিটির মেম্বার করা হয়েছে অন্যান্য আরও উনচল্লিশ জনকে।

এর পাশাপাশি বালুরঘাট গঙ্গারামপুর সহ জেলার সমস্ত ব্লক ও পুরসভা ভিত্তিক কমিটির নাম এদিন ঘোষণা হয়েছে। এদিন জেলা কমিটির ঘোষণা ও বিপ্লব মিত্রর নাম তাতে না থাকার প্রসঙ্গে জেলা সভাপতি গৌতম দাস জানিয়েছেন যে বিপ্লব মিত্র দলের দীর্ঘদিনের গুরুত্বপূর্ণ একজন নেতা।

দীর্ঘ একুশ বছর ধরে দলের জেলা সভাপতির দায়িত্ব সামলেছেন। তাঁকে গুরুত্বপূর্ণ অন্য কোন পদ দেওয়ার ব্যাপারে রাজ্যস্তরের নেতারা নিশ্চয় ভাবনা চিন্তা করছেন।

পাশাপাশি গোষ্ঠী কোন্দল নিরসনে এদিন দলীয় সভাপতি স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিয়েছেন যে কোন ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর হয়ে নয় আগামী একুশ সালের নির্বাচনে সবাই কোমর বেঁধে তৃণমূলের হয়েই লড়াই করবেন।

এব্যাপারে বিপ্লব মিত্রর প্রতিক্রিয়া জানতে তাঁর মোবাইলে বহুবার ফোন করা হলেও তোলেননি।

প্রসঙ্গত, গত লোকসভা নির্বাচনের পরই তৃণমূল ছেড়ে মুকুল রায়ের হাত ধরে বিজেপিতে যোগ দেন বিপ্লব মিত্র। তাঁর সঙ্গেই বিজেপিতে গিয়েছিলেন জেলা পরিষদের সভাধিপতি, কাউন্সিলরা, পঞ্চায়েত সদস্যরা। সূত্রের খবর, বিজেপিতে কাঙ্খিত গুরুত্ব না পেয়েই ফের ঘরে ফেরার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন তিনি।

যদিও বিজেপিতে যাওয়ার এক বছরের মধ্যেই মোহভঙ্গ হয় তাঁর। বিজেপিতে যোগ দেওয়ার এক বছরের মধ্যেই ঘর ওয়াপসি হয় দক্ষিণ দিনাজপুরের প্রভাবশালী নেতা বিপ্লব মিত্রের। গত কয়েকদিন আগেই বিজেপি ছেড়ে ফের তৃণমূলে যোগ দেন তিনি। তাঁর হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

দলের পতাকা হাতে নিয়ে বিপ্লব মিত্র বলেন, “নতুন কোনও দলে যোগ দেওয়া নয় আমি শুরু থেকে আছি। মাঝখানে বিচ্যুতি ঘটেছিল, আবার ফিরে এলাম।” তিনি আরও বলেন, “’বিজেপিতে সব প্ল্যানিং বাইরে থেকে হয়। ওরা যেভাবে চালাতে চাইছে ঠিক না। গুজরাট থেকে সব প্ল্যানিং হয়, আমি পারলাম না।” কিন্তু তৃণমূলে ফিরলেও কি যোগ্য সম্মান পেলেন? সেই প্রশ্নটা থেকেই গেল।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।