প্রতীকী ছবি

ইন্দোর: আবারও বিতর্কে জড়ালেন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা কৈলাশ বিজয়বর্গী। তবে এবার আর পশ্চিমবঙ্গ নয়। নিজের শহর মধ্যপ্রদেশের ইন্দোরে পুলিশের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন বিজয়বর্গী।

তর্কাতর্কিতে হঠাৎই মেজাজ হারান কৈলাশ। পুলিশের সামনেই ইন্দোর শহর জ্বালিয়ে দেওয়ার হুমকি দিতে দেখা যায় বিজয়বর্গীকে। নেতার এই মন্তব্যের পরই তাঁকে সামলানোর চেষ্টা করতে দেখা যায় কর্মীদের। সম্প্রতি সোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে কৈলাশ বিজয়বর্গীর এই ভিডিওটি।

মধ্যপ্রদেশে ক্ষমতায় রয়েছে কংগ্রেস। মুখ্যমন্ত্রী কলম নাথের নেতৃত্বে মধ্যপ্রদেশ সরকারের অনেক কাজ নিয়েই প্রবস অসন্তোষ রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল বিজেপির। গেরুয়া শিবিরের অভিযোগ, মধ্যপ্রদেশের কমল নাথ সরকারের পুলিশ দলীয় নেতা, কর্মীদের উপর অত্যাচার চালাচ্ছে। রাজনৈতিক উদ্দেশ্য নিয়ে রাজ্যের পুলিশ কাজ করছে বলে অভিযোগ বিজেপির।

আর তাই পুলিশের কর্তাদের সঙ্গে আলোচনা চেয়েছিল বিজেপি নেতৃত্ব। দলীয় নেতা কর্মীদের বিরুদ্ধে পুলিশের আচরণ নিয়েই আলোচনা চান বিজেপি নেতারা। বিজেপির তরফে ইন্দোরের শীর্ষ পুলিশ কর্তাদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল আলোচনা শিবিরে। কিন্তু পুলিশের কোনও উচ্চপদস্থ কর্তা সেই আলোচনা সভায় হাজির হননি। নামমাত্র কয়েকজন অধস্তন অফিসারকে সেখানে পাঠান পুলিশকর্তারা। আর এতেই বেজায় চটে যান বিজেপি নেতা কৈলাশ বিজয়বর্গী।

পুলিশের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন কৈলাশ। পুলিশের উদ্দেশে হুমকি দিয়ে বলেন, ‘’কথা বলতে চেয়ে পুলিশকে চিঠি লিখে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলাম। কিন্তু পুলিশের কর্তারা যে শহরেই থাকবেন না, তা তাঁরা জানানোর প্রয়োজন বলেই মনে করেননি। এসব কোনভাবেই বরদাস্ত করা হবে না। শহরে আগুন লাগিয়ে দিতাম।’

এর আগে ইন্দোরে কৈলাশ বিজয়বর্গীর ছেলেও একইভাবে সরকারি আধিকারিকদের সঙ্গে বচসায় জড়িয়েছিলেন। বিজয়বর্গীর ছেলে তথা ইন্দোরের বিধায়ক আকাশ বিজয়বর্গীও সরকারি এক আধিকারিককে ব্যাট দিয়েও পিটিয়েছিলেন। সেই ভিডিও সোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। ভিডিও ভাইরাল হতেই সমালোচনার ঝড় ওঠে। এমনকী প্রধানমন্ত্রীও দলীয় বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন। দলের কোনও নেতা-কর্মীর এই ধরনের আচরণ কোনওভাবেই বরদাস্ত করা হবে না বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদী।

কিন্তু মোদীর হুঁশিয়ারিই সার। এবার শহর জ্বালানোর হুমকি দিয়ে বসলেন কৈলাশ। এদিকে কৈলাশ বিজয়বর্গীর ইন্দোর শহর জ্বালানোর হুমকি দেওয়া ওই ভিডিও ভাইরাল হতেই বিজেপির বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছে কংগ্রেস। এই ধরনের মন্তব্যের জন্য কৈলাশ বিজয়বর্গীর বিরুদ্ধে শাস্তিমবলক পদক্ষেপের দাবি জানিয়েছে কংগ্রেস।