ফাইল ছবি

রাঁচি ও পাটনা: পাল্টি খেতে ওস্তাদ জেডিইউ প্রধান তথা বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার কি ফের বিদ্রোহের পথে ? ঝাড়খণ্ড নির্বাচনের নিরিখে তেমনই প্রশ্ন উঠতে শুরু করল৷ ঝাড়খণ্ডে বিজেপি শিবির ছেড়ে আসা অন্যতম নেতা সরযূ রায়ের হয়ে পূর্ব জামশেদপুর কেন্দ্রে প্রচারে আসতে পারেন নীতীশ কুমার৷ আরও তাৎপর্যপূর্ণ, এই কেন্দ্রেই বিজেপির হয়ে লড়ছেন ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী রঘুবর দাস৷ কেন্দ্রের ক্ষমতায় থাকা এনডিএ শরিক জনতা দল ইউনাইটেড সাংসদ রাজীব রঞ্জন সিং (লাল্লন সিং) বিস্ফোরক মন্তব্য করেছেন৷

মুঙ্গেরের সাংসদ বলেন, দুর্নীতির বিরুদ্ধে বারবার লড়াই করা বিজেপি ত্যাগী সরযূ রায়কে সমর্থন করছি আমরা৷ তাঁর হয়ে প্রচারে আসতে পারেন নীতীশ কুমার৷ জেডিইউ-এর তরফে এমন বার্তা এসে পড়ায় আরও সরগরম ঝাড়খণ্ড৷ ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী রঘুবর দাস বনাম দলত্যাগী সরযূ রায়ের লড়াই ঘিরে রাঁচির রাজনীতি সরগরম৷ টিকিট না পেয়ে নির্দল প্রার্থী হয়েই বিজেপির অভ্যন্তরে তীব্র ভাঙনের ইঙ্গিত দিয়েছেন সরযূ রায়৷

তাঁর দলত্যাগের পরেই ঝাড়খণ্ড তো বটেই, অপর প্রতিবেশী রাজ্য বিহারের রাজনীতিতেও ছড়িয়েছে চাঞ্চল্য৷ রাঁচির রাজনীতিতে বলা হয়ে থাকে, পশুখাদ্য মামলায় অবিভক্ত বিহারের দুই মুখ্যমন্ত্রী জগন্নাথ মিশ্র(প্রয়াত) ও লালুপ্রসাদ যাদবকে জেলের দরজা দেখানোর অন্যতম ব্যক্তিত্ব সরযূ রায়৷ আবার খনি কেলেঙ্কারি মামলায় ঝাড়খণ্ডের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মধু কোড়াকেও জেলের চৌকাঠে পৌঁছে দিয়েছিলেন সরযূ৷ এদিকে বিজেপি ত্যাগী সরযূ রায়ের অবস্থান নিয়ে বিরোধী শিবিরও সরগরম৷

এই মহাজোটের শরিক ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চা(জেএমএম), কংগ্রেস ও আরজেডি৷ জোটের বড় শরিক জেএমএম অঘোষিত সমর্থনের বার্তা দিয়েছে সরযূ রায়কে৷ ফলে পূর্ব জামশেদপুর কেন্দ্রে ক্রমে শক্ত হচ্ছে মুখ্যমন্ত্রী রঘুবর দাসের লড়াই৷ এদিকে বিহারের এনডিএ জোট শরিকের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার বিজেপি বিরোধী প্রচারে ঝাড়খণ্ডে যাওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ায় সরগরম পাটনার রাজনৈতিক মহল৷

মোদীর নেতৃত্বে এনডিএ ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচন করবে এটা মেনে নেননি জেডিইউ সুপ্রিমো নীতীশ কুমার৷ জোট ছেড়ে দেন৷ পরে ফের মোদীর নেতৃত্ব মেনে নিয়ে এনডিএ শিবিরে ফিরেছেন৷ ঝাড়খণ্ডের নির্বচনে বিজেপি বিরোধী প্রচারে তাঁর উপস্থিতি হতে পারে এমন বার্তা ছড়িয়ে পড়ায় এনডিএ শিবিরেও লেগেছে দোলা৷ তবে নীতীশ কি আসবেন, এটাও লাখ টাকার প্রশ্ন৷