পাটনা: লড়ছে নীতিশ কুমার সরকার৷ এনসেফেলাইটিস মহামারির আকার ধারণ করেছে৷ এখনও পর্যন্ত প্রাণ হারিয়েছে ১০৭টি শিশু৷ বিহারের মুজফফরপুর এখন মৃত্যুপুরী৷ কিন্তু খোদ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর আচরণে সেবিষয়ে কোনও হেলদোল দেখা গেল না৷

চাঞ্চল্যকর একটি ভিডিও প্রকাশিত হয়েছে৷ যেখানে দেখা যাচ্ছে বৈঠক চলছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী ড: হর্ষবর্ধনের সঙ্গে৷ সেখানেই উপস্থিত বিহারের স্বাস্থ্যমন্ত্রী মঙ্গল পাণ্ডে৷ রবিবার এই বৈঠকে আলোচনা চলছিল এনসেফেলাইটিস নিয়ে৷ সেখানেই সেদিন চলা ভারত পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে আচমকাই প্রশ্ন করে বসেন মঙ্গল পাণ্ডে৷ জনৈক ব্যক্তিকে জানতে চান, কটা উইকেট পড়ল?

উত্তর আসে চারটি৷ তারপর ফের আলোচনা শুরু হয়৷ এই ভিডিও ঘিরেই বিতর্ক উঠেছে৷ যেখানে এনসেফেলাইটিসের মতো ইস্যুতে আলোচনা চলছে, সেখানে আদৌও কী গুরুত্ব দিচ্ছেন খোদ রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী? কারণ ভারত পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে তাঁর প্রশ্ন সেদিকে নজর ঘোরাচ্ছে৷

এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন আরেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অশ্বিনী কুমার চৌবে৷ আলোচনা চলছিল, কীভাবে কেন্দ্র ও রাজ্যের সমন্বয়ে এনসেফেলাইটিস প্রতিরোধ করা যায়৷ কিন্তু আচমকা বিহারের স্বাস্থ্যমন্ত্রীর এই প্রশ্নে তাল কাটে বৈঠকের৷

সোমবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন স্বাস্থ্যমন্ত্রকের কর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন৷ এই বৈঠকে ছিলেন ইণ্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ বা আইসিএমআর এবং এইমসের আধিকারিকরা৷ একটি কমিটি ইতিমধ্যেই গঠন করা হয়েছে৷ কমিটি রয়েছেন দিল্লির আইসিএমআর, বেঙ্গালুরুর এনআইএমএইচএএনএস, হায়দরাবাদের ম্যালেরিয়া রিসার্চ অ্যাণ্ড ন্যাশনাল ইনন্সিটিউট অফ নিউট্রেশন, পুনের ন্যাশনাল ইনন্সিটিউট অফ ভাইরোলজি, দিল্লির এইমস ও চেন্নাইয়ের ন্যাশনাল ইনন্সিটিউট অফ এপিডেমিওলজির শীর্ষ আধিকারিকরা৷

মঙ্গলবার পরিস্থিতি ঘুরে দেখবেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার৷ এদিন শ্রীকৃষ্ণ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে যাওয়ার কথা রয়েছে তাঁর, যেখানে ৮০ জন শিশুর মৃত্যু হয়েছে এনসেফেলাইটিসে৷ সাম্প্রতিক পরিস্থিতি বলছে এই শ্রীকৃষ্ণ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের আইসিইউতে ভরতি রয়েছে ২৯০ জনের বেশি শিশু৷ বিহারের ১২টি জেলার ২২২টি ব্লক অ্যাকিউট এনসেফেলাইটিস সিনড্রোমের সংক্রমণ অব্যাহত৷ সব চেয়ে বেশি প্রভাব পড়েছে মুজফফরপুর ও সংলগ্ন এলাকায়৷ এনসেফেলাইটিসে মৃত্যুর সংখ্যা ক্রমশ বেড়েই চলেছে।

বিহারের স্বাস্থ্য পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে মুজফফরপুরে যান কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন। কেন্দ্রের চিকিত্সকদের একটি দল বিহারের স্বাস্থ্য পরিস্থিতি খতিয়ে দেখেছেন৷ তবে মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের প্রশাসন এই রোগকে এনসেফেলাইটিস বলে মানতে নারাজ৷ বিহারের স্বাস্থ্য দজফতরের আধিকারিকদের মতে রক্তে শর্করা অতিরিক্ত পরিমাণে কমে যাওয়ার দরুনই এই মৃত্যু৷ অনেকেই আবার মনে করছেন ব্রেনডেথের ফলে মারা গিয়েছেন এত মানুষ৷