পাটনা: তীব্র দহনে পুড়ছে বিহার৷ রাজ্যের একাধিক জেলার তাপমাত্রা চরম পর্যায়ে পৌঁছে গিয়েছে৷ গনগনে রোদে বাইরে বেরিয়ে অসুস্থ হয়ে মৃত্যু হচ্ছে সাধারণ মানুষের৷ অবস্থা এতটাই খারাপ যে গয়াতে জেলা প্রশাসনকে ১৪৪ ধারা জারি করতে হয়েছে৷ সেখানে তাপমাত্রা স্বাভাবিকের থেকে ৬-৮ ডিগ্রি বেশি৷ এযাবৎ ২৮ জন মানুষের মৃত্যু হয়েছে সেখানে৷ আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সচরাচর পুলিশকে ১৪৪ ধারা জারি করতে দেখা যায়৷ কিন্তু গরমের কারণে ১৪৪ ধারা জারির বিজ্ঞপ্তি এককথায় নজিরবিহীন৷

এদিকে প্রবল গরমে মৃত্যুমিছিল বেড়েই চলেছে বিহারে৷ গত ৪৮ ঘণ্টায় ১১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে৷ সব মিলিয়ে সংখ্যাটা এখনই ১৮৪৷ হাসপাতালগুলিতে সানস্ট্রোকে আক্রান্তের ভিড় উপচে পড়ছে৷ ১০০ জনের বেশি অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভরতি৷ পরিস্থিতি সামাল দিতে জেলার সব প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ৫০ শতাংশ বেড সানস্ট্রোকে আক্রান্তদের জন্য আলাদা করে রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷

এদিকে যারা সানস্ট্রোকে আক্রান্ত হচ্ছেন তাদের অধিকাংশের বয়স ৫০র অধিক৷ অর্ধচেতন অবস্থায় তাদের হাসপাতালে নিয়ে আসা হচ্ছে৷ প্রত্যেকের ধুম জ্বর একইসঙ্গে ডায়রিয়াতে ভুগছেন৷ বিহারের তিনটি জেলার অবস্থা খুবই শোচনীয়৷ ঔরঙ্গাবাদ, গয়া এবং নওদা- এই তিন জেলা মিলিয়ে ৮০ জনের মৃত্যু হয়েছে৷ পাটনার অবস্থাও ভয়াবহ৷ তাপপ্রবাহে ঔরঙ্গাবাদ জেলায় সবার্ধিক ৩৬ জনের মৃত্যু হয়েছে৷

এই অবস্থায় রাজ্য সরকার সব সরকারি ও সরকার পোষিত স্কুলগুলিতে ছুটির মেয়াদ আরও বাড়িয়ে দিয়েছে৷ ১৭ জুন স্কুল খোলার কথা ছিল৷ সেটি বাড়িয়ে ৩০ জুন করা হয়েছে৷ রাজ্যবাসীর কাছে প্রশাসনের আবেদন, খুব দরকার না হলে বাড়ি থেকে বেরনোর কোনও দরকার নেই৷ দরকারি কাজ রাতের দিকে করুন৷ দিনের অধিকাংশ সময় ঘরেই কাটান৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।