পাটনা: তীব্র দহনে পুড়ছে বিহার৷ রাজ্যের একাধিক জেলার তাপমাত্রা চরম পর্যায়ে পৌঁছে গিয়েছে৷ গনগনে রোদে বাইরে বেরিয়ে অসুস্থ হয়ে মৃত্যু হচ্ছে সাধারণ মানুষের৷ অবস্থা এতটাই খারাপ যে গয়াতে জেলা প্রশাসনকে ১৪৪ ধারা জারি করতে হয়েছে৷ সেখানে তাপমাত্রা স্বাভাবিকের থেকে ৬-৮ ডিগ্রি বেশি৷ এযাবৎ ২৮ জন মানুষের মৃত্যু হয়েছে সেখানে৷ আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সচরাচর পুলিশকে ১৪৪ ধারা জারি করতে দেখা যায়৷ কিন্তু গরমের কারণে ১৪৪ ধারা জারির বিজ্ঞপ্তি এককথায় নজিরবিহীন৷

এদিকে প্রবল গরমে মৃত্যুমিছিল বেড়েই চলেছে বিহারে৷ গত ৪৮ ঘণ্টায় ১১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে৷ সব মিলিয়ে সংখ্যাটা এখনই ১৮৪৷ হাসপাতালগুলিতে সানস্ট্রোকে আক্রান্তের ভিড় উপচে পড়ছে৷ ১০০ জনের বেশি অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভরতি৷ পরিস্থিতি সামাল দিতে জেলার সব প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ৫০ শতাংশ বেড সানস্ট্রোকে আক্রান্তদের জন্য আলাদা করে রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷

এদিকে যারা সানস্ট্রোকে আক্রান্ত হচ্ছেন তাদের অধিকাংশের বয়স ৫০র অধিক৷ অর্ধচেতন অবস্থায় তাদের হাসপাতালে নিয়ে আসা হচ্ছে৷ প্রত্যেকের ধুম জ্বর একইসঙ্গে ডায়রিয়াতে ভুগছেন৷ বিহারের তিনটি জেলার অবস্থা খুবই শোচনীয়৷ ঔরঙ্গাবাদ, গয়া এবং নওদা- এই তিন জেলা মিলিয়ে ৮০ জনের মৃত্যু হয়েছে৷ পাটনার অবস্থাও ভয়াবহ৷ তাপপ্রবাহে ঔরঙ্গাবাদ জেলায় সবার্ধিক ৩৬ জনের মৃত্যু হয়েছে৷

এই অবস্থায় রাজ্য সরকার সব সরকারি ও সরকার পোষিত স্কুলগুলিতে ছুটির মেয়াদ আরও বাড়িয়ে দিয়েছে৷ ১৭ জুন স্কুল খোলার কথা ছিল৷ সেটি বাড়িয়ে ৩০ জুন করা হয়েছে৷ রাজ্যবাসীর কাছে প্রশাসনের আবেদন, খুব দরকার না হলে বাড়ি থেকে বেরনোর কোনও দরকার নেই৷ দরকারি কাজ রাতের দিকে করুন৷ দিনের অধিকাংশ সময় ঘরেই কাটান৷