পাটনা: বিজেপির অস্বস্তি আরও বাড়ালেন জোটসঙ্গী নীতিশ কুমার। তবে সিএএ নয়, এবার বিহার বিধানসভায় পাশ হল এনআরসি বিরোধী প্রস্তাব। বিধানসভায় এনআরসি বিরোধী প্রস্তাব পাশ করিয়ে আসলে গেরুয়া শিবিরকেই পরোক্ষে কড়া বার্তা দিতে চাইলেন নীতিশ কুমার, এমনই মত রাজনৈতিক মহলের একাংশের। বছর শেষেই বিহারে বিধানসভা ভোট। তার আগে এনআরসি বিরোধী প্রস্তাব পাশ করে আসন সমঝোতা নিয়েও মোদী-শাহদের কড়া চ্যালেঞ্জের মুখে ফেললেন নীতিশ, মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

সিএএ ও এনআরসি ইস্যুতে জাতীয় রাজনীতিতে বেশ চাপে কেন্দ্র তথা দেশের শাসকদল বিজেপি। সিএএ ইস্যুতে অশান্ত দিল্লি। রাজধানীর উত্তর-পূর্ব এলাকায় দফায়-দফায় চলছে সংঘর্ষ। ইতিমধ্যেই সেই সংঘর্ষে ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহতের সংখ্যা দু’শোর কাছাকাছি। এমনকী সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে নিহত হয়েছেন এক পুলিশকর্মীও। কেন্দ্রের এই অস্বস্তির মাঝেই এবার এনআরসি বিরোধী প্রস্তাব পাশ করিয়ে মোদী-শাহদের দুশ্চিন্তা আরও বাড়িয়ে দিল বিহার সরকার।

পশ্চিমবঙ্গ, কেরল, পঞ্জাব, তেলেঙ্গানা, রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ আগে সিএএ বিরোধী প্রস্তাব পাশ করিয়েছে। এবার বিহার বিধানসভাতেও পাশ হয়ে গেল এনআরসি বিরোধী প্রস্তাব। ওয়াকিবহাল মহলের মতে, বিজেপির ‘দুঃসময়’-এর ফায়দা নিচ্ছেন নীতিশ। জোটসঙ্গী হলেও উল্টোপথে হেঁটে বিজেপির বিরুদ্ধেই গেলেন জেডিইউ প্রধান। এনআরসি বিরোধী প্রস্তাব পাশ করালেন বিধানসভায়।

ইতিমধ্যেই দিল্লির বিধানসভা ভোটে মুখ পুড়েছে বিজেপির। মোদী-শাহদের ময়দানে নামিয়ে প্রচারে ঝড় তুললেও ৭০টির মধ্যে মাত্র ৬২টিতে জয় পেয়েছে গেরুয়া শিবির। কোনওমতে রাজধানীর অলিন্দে অস্তিত্ত্ব টিকিয়ে রেখেছে পদ্ম শিবির।

রাজনৈতিক মহলের মত, রাজ্যেও সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ-আন্দোলন চাক্ষুস করেছেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী। রাজধানী পাটনা-সহ বিহারের একাধিক শহরে সিএএ ও এনআরসি ইস্যুতে কেন্দ্র-বিরোধিতায় পথে নেমে সোচ্চার হয়েছেন বহু মানুষ।

একাধিক রাজনৈতিক দল ও গণ সংগঠনও সিএএ ও এনআরসি ইস্যুতে প্রবলভাবে এখনও কেন্দ্র-বিরোধিতা চালিয়ে যাচ্ছে। একইসঙ্গে বিজেপি-বিরোধী একের পর এক রাজ্যও বিধানসভায় সিএএ বিরোধী প্রস্তাব পাশ করাচ্ছে। ক্রমেই কেন্দ্র বিরোধিতা ব্যাপক রূপ নিচ্ছে দেখে অবশেষে এনডি-এ জোটে থাকলেও উল্টোপথে হাঁটলেন নীতিশ।

এবছরই বিহারে বিধানসভা নির্বাচন। এই পরিস্থিতিতে হঠাৎই খেলা ঘোরাতে শুরু করলেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার। অনেক আগে থেকেই এনআরসি বিরোধিতা করলেও সিএএ-তে সংসদে তাঁর দল বিজেপির পক্ষেই ভোট দিয়েছিল। সেই নীতীশই এবার বিহারের বিধানসভায় পাশ করালেন এনআরসি বিরোধী প্রস্তাব।

ওয়াকিবহাল মহলের একাংশ বলছে, দিল্লি বিধানসভা ভোটের ফল দেখে চাপে পড়েছেন নীতীশ কুমার। আর তাই এবার নিজের রাজ্যপাট টিকিয়ে রাখতে মোদী-শাহদের তোয়াক্কা না করার সিদ্ধান্ত নীতিশের।