মালদহঃ  ব্যাপক উত্তেজনা মালদহের সুজাপুরে। পুলিশ এবং আন্দোলনকারীদের মধ্যে সংঘর্ষে রণক্ষেত্র এলাকা। আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে পুলিশকে লক্ষ্য করে বোমা ছোড়ার মতো মারাত্মক অভিযোগ। শুধু তাই নয়, একের পর এক পুলিশের গাড়িতে ভাঙচুর চালানো হয় বলেও অভিযোগ বনধ সমর্থকদের বিরুদ্ধে। আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয় একাধিক গাড়িতেও। পরিস্থিতি এতটাই অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে যে কার্যত নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায় সম্পূর্ণ পরিস্থিতি। যদিও গোটা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ব্যাপক লাঠিচার্জ শুরু করে পুলিশ। আন্দোলনকারীদের উদ্দেশ্যে ছোড়া হয় কাঁদানে গ্যাস ও রবার বুলেটও।

জানা যাচ্ছে, ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ ঘিরে অশান্তি সুজাপুরে। পুলিশ অবরোধ তুলতে যায়। তখন লাঠি চালানো হয় বলে অভিযোগ। এরপর উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পরিস্থিতি।

স্থানীয় বনধ সমর্থককারীরা জানিয়েছেন, সকালে শান্তিপূর্ণভাবে মিছিল-বিক্ষোভ চলছিল। ঘোষণা মতো বিভিন্ন জায়গায় বামকর্মীরা অবরোধ কর্মসূচি চালাচ্ছিল। সেই সময় পুলিশ কর্মীদের উপর বেধড়ক লাঠিচার্জ করে বলে অভিযোগ বামকর্মীদের।

বিষয়টি নিয়ে প্রতিবাদ জানাতে গেলে কর্তব্যরত পুলিশ আধিকারিকরা জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা দেওয়ার ভয় দেখায় বলে অভিযোগ। এরপরেই পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হয়ে ওঠে বলে অভিযোগ। আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয় একের পর এক পুলিশের গাড়িতে। শুধু তাই নয়, বেশ কয়েকটি সাধারণ গাড়িতেও আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

অন্যদিকে স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্বের দাবি, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশ সবকিছু সচল রাখতে হবে। সেই মতো পুলিশ আধিকারিকরা কাজ করছিলেন। সেই সময় একদল দুষ্কৃতী পুলিশের উপর চড়াও হয় বলে অভিযোগ। অন্য পার্টির মদতেই এই ঘটনা আন্দোলনকারীরা এই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে দাবি তৃণমূল নেতৃত্বের।

জানা যাচ্ছে, এই ঘটনার পর থমথমে পরিস্থিতি গোটা এলাকায়। মোতায়েন করা হয়েছে বিশাল পুলিশবাহিনী এবং র‍্যাফকে।