নিউজ ডেস্ক, মালদা: মৌসম নূরের সমর্থনে মমতার সভা। আর সেই সভায় চরম বিশৃঙ্খলা। মঞ্চে বক্তব্য থামাতে বাধ্য হলেন নেত্রী।

দেশ জুড়ে চলছে ভোটযজ্ঞ। আর রাজনৈতিক মহল বলছে, দেশের নির্বাচনে একটা বড় ভূমিকা নিতে পারে পশ্চিমবঙ্গ। তাই বৈশাখের উত্তাপ তোয়াক্কা না করেই সভা কিংবা মিছিলে যোগ দিচ্ছেন বহু মানুষ। মুখ্যমন্ত্রীর সভায় ভিড় নতুন কিছু নয়। তবু মৌসমের প্রচারে গিয়ে রীতিমত হিমসিম খেতে হল খোদ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে।

মঞ্চে সবে বক্তব্য রাখতে শুরু করেছেন তৃণমূলনেত্রী। সামনে উপচে পড়া ভিড়। বাড়ির ছাদে কিংবা গাছে মগডালে লোক ধরছে না। এমন দৃশ্য নতুন নয়। তবে এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বক্তব্য শুরুর কিছুক্ষণের মধ্যেই দেখেন চেয়ার ছোঁড়াছুঁড়ি হচ্ছে দর্শকদের মধ্যে। আর তা দেখে স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতেই মমতা বলেন, ‘চেয়ার ছোঁড়াছুঁড়ি করবেন না। শান্ত হয়ে বসুন।’

তাতেও কাজ হয়নি। বেশ কিছুক্ষণ বক্তব্য থামিয়ে তাঁকে বলতে শোনা গেল, ‘তোমরা শান্ত হয়ে বস বাবু’। রীতিমত বাবা-বাছা করে ভিড় সামলাতে হল মমতাকে। মাচার উপর লোকের ভিড় দেকে চমকে উঠলেন তিনি। বললেন, ‘দেখো মাচা টা আবার না ভেঙে পড়ে।’ পোডিয়াম ছেড়ে এগিয়ে এসে মহিলাদের বসার ব্যবস্থা করে দিতে বললেন মাইক হাতেই। পুরুষদের বললেন, যাতে ‘মা-বোনেদের’ এগিয়ে এসে সামনে বসার ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়।

কয়েক মিনিট ধরে বক্তব্য থামিয়ে এসব করতে হলেও, মেজাজ হারালেন না মুখ্যমন্ত্রী। শুধু বললেন, ‘এসবও কি আমাকে করতে হবে!’ হেলিকপ্টার ওড়ার নির্দিষ্ট সময় আছে। তাই এসব করতে গিয়ে সময় নষ্ট হচ্ছে বলেও মনে করিয়ে দিলেন মমতা। সামনের চেয়ার ছোঁড়াছুঁড়ি শান্ত হতেই চেনা ভঙ্গিতে বক্তৃতা দিতে শুরু করলেন মমতা।

সদ্য তৃণমূলে আসা মালদার নেত্রী তথা দীর্ঘদিনের কংগ্রেস পরিবারে বড় হয়ে ওঠা মৌসম নূরের সভা ঘিরে এদিন উত্তেজনা ছিল একটু বেশিই। এই মৌসমের হাত ধরেই এতদিন মালদা ছিল কংগ্রেসের হাতে। দীর্ঘদিন ধরেই কংগ্রেসের ঘাঁটি এই মালদা। তবে এবার সেই মৌসমের দলবদল হওয়ায়, রাজ্যের লাইমলাইটে রয়েছে এই কেন্দ্র।