নয়াদিল্লিঃ  দিল্লিতে ক্রমশ বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। আজ শুক্রবার মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪২। যদিও টাইমস নাও জানাচ্ছে, মৃতের সংখ্যা ৪৩। অন্যদিকে ৮০ জনেরও বেশি মানুষ গুলিবিদ্ধ অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ফলে সংখ্যাটা আরও বাড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। সংঘর্ষের ঘটনায় ১০০ জনেরও বেশি মানুষ এখনও জখম অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।

পড়ুন আরও- BREAKING: দিল্লির ঘটনা দুঃখজনক, অবিলম্বে শান্তি ফেরাতে হবে:মমতা

অন্যদিকে, গত ২৪ ঘন্টায় দিল্লিতে নতুন করে অশান্তির খবর নেই। তবে আজ শুক্রবার। নমাজের আগে চূড়ান্ত সতর্কতা নেওয়া হয় গুরুগ্রামে। পাশাধর্মীয় স্থানগুলির সামনে কড়া নিরাপত্তার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। এলাকাবাসীর সঙ্গেও জনসংযোগ বাড়ানোর চেষ্টা পুলিশের। এলাকায় চলছে পুলিশি টহলদারি। অপ্রীতিকর পরিস্থিতির মোকাবিলায় পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, রবিবার থেকে চলা টানা ৩ দিন দফায় দফায় সংঘর্ষের জেরে এখনও পর্যন্ত ৩৮ জনের মৃত্যুর খবর মিলেছে। দুশোর কাছাকাছি মানুষ সংঘর্ষে আহত হয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে ভরতি রয়েছেন। দিল্লি পুলিশি হিংসার ঘটনায় ৪৫টিরও বেশি এফআইআর দায়ের করেছে। উত্তর-পূর্ব দিল্লির অলিতে-গলিতে চলছে পুলিশি টহলদারি। উত্তর-পূর্ব দিল্লিতে শান্তি ফেরাতে সাধারণ মানুষের সঙ্গেও কথা বলছে পুলিশ। চাঁদবাগে বন্ধ দোকান-বাজার খএালার অনুরোধ জানাচ্ছে পুলিশ। এলাকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে স্থানীয়দের এগিয়ে আসতে অনুরোধ জানিয়েছেন দিল্লির যুগ্ম পুলিশ কমিশনার। এলাকায় শান্তির পরিবেশ ফেরানোর প্রধান লক্ষ্য বলে জানিয়েছেন ওই পুলিশকর্তা।

অভিযুক্ত শাহরুখ।

অন্যদিকে, দিল্লি পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, দিল্লির ঘটনার তদন্তে দুটি সিট গঠন করা হয়েছে। গঠিত হওয়া দুটি সিটে একটির নেতৃত্বে থাকবে ডিসিপি জয় তির্কে। অন্যটির নেতৃত্ব দেবেন ডিসিপি রাজেশ দেও। চারজন করে এসিপি থাকবেন দুই দলে। দুই এসআইটির কাজের নজরদারি করবেন অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার বিকে সিংহ। কীভাবে এই ঘটনা ঘটল তা দেখবে এই টিম। এখনও পর্যন্ত দিল্লির হিংসার ঘটনায় মোট ৪৮টি এফআইআর হয়েছে। প্রত্যেকটি অভিযোগ-পত্র আসবে সিটের তদন্তকারী আধিকারিকদের কাছে। সবকটি অভিযোগগুলি তদন্তকারী আধিকারিকরা খতিয়ে দেখবেন। এরপরেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।