নয়াদিল্লি: বহু জল্পনা-কল্পনার পর অবশেষে ঘোষিত হল মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর নাম৷ মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেস ক্ষমতায় আসার পর থেকেই মুখ্যমন্ত্রীর এই পদে কে বসবেন তা নিয়ে বেশ কয়েকটি নাম দৌড়ে সামিল ছিল৷

প্রসঙ্গত, ক্ষমতায় ফিরতেই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল কংগ্রেসের গোষ্ঠীকোন্দল। এর আগে শোনা যায়, দুই রাজ্যে অশোক গেহলট ও কমলনাথের নাম মুখ্যমন্ত্রী পদের জন্য চূড়ান্ত করে ফেলেছেন রাহুল৷

পড়ুন: ‘রাহুলের সাফল্যকে ছোট করে সংকীর্ণতার পরিচয় দিয়েছেন মমতা’

অপরদিকে সচিন পাইলট ও জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার নাম ভাবা হয় উপমুখ্যমন্ত্রী পদের জন্য৷ এই ভাবে চার নেতাকে গুরুত্বপূর্ণ পদে বসিয়ে অনুগামীদের ক্ষোভ বিক্ষোভকে প্রশমিত বা সামাল দেওয়ার চেষ্টা রাহুল করবেন বলেও অনেকে ভেবেছিল৷

তবে কেন মুখ্য়মন্ত্রীর নাম ঘোষণায় এতটা বিলম্ব হচ্ছে সেই নিয়েও কংগ্রেস সুপ্রিমো রাহুল গান্ধীর সিদ্ধান্তহীনতা নিয়েও প্রশ্ন ওঠে রাজনৈতিক মহলে৷ অবশেষে সেই প্রতীক্ষার অবসান৷ মধ্যপ্রদেশে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে কমলনাথের ওপরই ভরসা রাখল কংগ্রেস৷ ১৭ ডিসেম্বর ভোপালের লাল প্যারেড গ্রাউন্ডে মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ গ্রহণ করবেন তিনি৷

পড়ুন: ভারতের ৪৩ বছরের স্বপ্নভঙ্গ অব্যাহত

পড়ুন: দেখে নিন গেরুয়া বসনে ভারত মাতার রূপের কাহিনী

এদিকে এই খবর ছড়িয়ে পড়ার পরই ভোপালে কংগ্রেস পার্টি অফিসের বাইরে জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার অনুগামীরা বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন৷ তাদের দাবি, তরুণ নেতাকেই করতে হবে মুখ্যমন্ত্রী৷ তবে সে সব দাবি, ক্ষোভকে দূরে সরিয়ে মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর কুর্সিতে বসলেন কমলনাথ৷