বহরমপুর: লোকসভা নির্বাচনের সঙ্গে রাজ্যের একাধিক কেন্দ্রে হচ্ছে বিধানসভা উপনির্বাচন। হাওড়া ও উত্তর ২৪ পরগনা জেলায় একটি করে আসনে এবং মুর্শিদাবাদ জেলায় দু’টি বিধানসভা আসনে উপনির্বাচন হবে।

মুর্শিদাবাদ জেলার দুই কেন্দ্রের উপনির্বাচন ঘিরে ক্রমশ উত্তপ্ত হচ্ছে পরিস্থিতি। কংগ্রেস এবং তৃণমূল নেতাদের পারস্পরিক আক্রমণের ফলে যা আরও জটিল হচ্ছে। দুই পক্ষই পরস্পরের দিকে নানাবিধ অভিযগের আনুল তুলেছে।

আরও পড়ুন- ভোটের জন্য আগামিকাল বন্ধ ইকো পার্কসহ নিউটাউনের দর্শনীয় স্থানগুলি

কংগ্রেসের দাপুটে নেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরী অভিযোগ করেছেন যে উপনির্বাচনে সন্ত্রাস ছড়ানোর পরিকল্পনা করেছে তৃণমূল। স্থানীয় পুলিশ এবং অন্যান্য প্রশাসনিক কর্তাদের সাহায্য নিয়ে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা হিংসা ছড়ানোর ছক কষেছে বলে দাবি করেছেন বহরমপুরের রবিনহুড অধীর। পাশাপাশি তিনি আরও বলেছেন, “তৃণমুল হিংসা ছড়ালে কংগ্রেস চুপ করে বসে থাকবে না। সমগ্র রাজ্য জুড়ে আন্দোলনে নামবে প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্ব।”

মুর্শিদাবাদের কান্দি এবং নওদা বিধানসভা কেন্দ্রে আগামী সোমবার অনুষ্ঠিত হবে উপনির্বাচন। ওই দুই কেন্দ্রের বিধায়ক ছিলেন যথাক্রমে অপুর্ব সরকার এবং আবু তাহের খান। এই দুই বিধায়কই লোকসভা ভোটের আগে তৃণমূল শিবিরে নাম লিখিয়েছেন। লোকসভা নির্বাচনে তাঁরা ঘাস ফুলের প্রতীকে প্রার্থীও হয়েছেন।

আরও পড়ুন- বিদ্যাসাগরের শ্বশুরবাড়িতে শ্রাদ্ধশান্তি , স্মৃতিতে নামাঙ্কিত পার্ক তৈরি রেলের

অধীর চৌধুরী তৃণমূলের বিরুদ্ধে হিংসার অভিযোগ করলেও চুপ নেই ঘাস ফুল শিবির। মুর্শিদাবাদ জেলা তৃণমূলের পর্যবেক্ষক শুভেন্দু অধিকারী শুক্রবার দলীয় প্রার্থীদের হয়ে সভা করে। সেখানে অধীর চৌধুরীর বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িকতার অভিযোগ তোলেন শুভেন্দুবাবু। তিনি বলেন, “অধীর রঞ্জন চৌধুরী এই নওদা বিধানসভা কেন্দ্রে প্রার্থী নিয়ে হিন্দু মুসলমান খেলা খেলতে নেমে পড়েছে। তাই নওদায় শাহাবুদ্দিন ইসলামকে সংখ্যালঘু বলে প্রার্থী করেননি।”