হাওড়া:  ভারত মাতার পুজো ঘিরে ফের উত্তেজনার আশঙ্কা। আগামিকাল রবিবার প্রজাতন্ত্র দিবস। প্রজাতন্ত্র দিবসের প্রাককালে ভারত মাতার পুজোর আয়োজন করেছে বঙ্গ বিজেপি। হাওড়ার বিভিন্ন থানার সামনে এই পুজোর আয়োজন করা হয়েছে। আর এই পুজো ঘিরেই তীব্র হৈচৈ শুরু হয়েছে। কার্যত বিজেপি এবং পুলিশের মধ্যে পুজো ঘিরে টানাপোড়েন শুরু হয়ে গিয়েছে। কারণ, এই পুজো ঘিরে অশান্তি তৈরি হতে পারে।

আর সেই আশঙ্কাতে এখনও পর্যন্ত কোথাও ভারত মাতার পুজো করার অনুমতি দেয়নি পুলিশ প্রশাসন। যদিও পালটা বিজেপি নেতা-কর্মীদের হুঁশিয়ারি, পুজো হবেই। পুজো করার জন্যে কারোর অনুমতির প্রয়োজন লাগবে না বলে সাফ বার্তা বিজেপির। ফলে রবিবার এই পুজো ঘিরে উত্তেজনা তৈরি হওয়ার আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।

বিজেপি নেতাদের অভিযোগ, পুলিশ প্রশাসনের তরফ থেকে ভারত মাতার পুজো না করার জন্যে হুঁশিয়ারি দেওয়া হচ্ছে। এমনকি প্রতিমা শিল্পীকেও মূর্তি না বানানোর পুলিশ হুমকি দিচ্ছে বলে মারাত্মক অভিযোগ বঙ্গ বিজেপির। যার ফলে ঠিক সময়ে প্রতিমা পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ। যদিও পুজো যেভাবেই হোক করা হবে বলে হুঁশিয়ারি বিজেপির। অন্যদিকে, প্রজাতন্ত্র দিবসে বিজেপির এহেন কর্মসূচি ঘিরে কড়া নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হচ্ছে হাওড়া জেলা পুলিশের তরফে।

জানা গিয়েছে, গত ২৩ শে জানুয়ারি অর্থাৎ নেতাজি জন্মজয়ন্তিতে বড় করে এই ভারত মাতার পুজো করার কথা ছিল। কিন্তু পুলিশি বাধায় তা পিছিয়ে ২৬ জানুয়ারি করার সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু তাতেও জট কাটছে না। বিজেপির অভিযোগ, রাজ্যে তালিবানি শাসন চলছে। তৃণমূলের অঙ্গুলি হেলনে কাজ করছে পুলিশ। তাদের নির্দেশেই এসব হচ্ছে। আমাদের কর্মীদের থানায় ডেকে ধমকানো হচ্ছে বলেও অভিযোগ রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বের। যদিও তৃণমূলের পালটা অভিযোগ, থানার সামনে ভারত মাতার পুজো করে আদৌতে অশান্তিতে উস্কানি দিতে চাইছে বিজেপি। বাংলায় এমন সংস্কৃতি নেই। ইচ্ছাকৃত ভাবে দিল্লির নির্দেশে এহেন কাজ বিজেপি করছে বলে অভিযোগ স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্বের।