স্টাফ রিপোর্টার , কলকাতা : আজ ৯ আগস্ট। ১৯৪২ এর সেই ঐতিহাসিক ভারত ছাড়ো আন্দোলন থেকে আওয়াজ উঠেছিল ব্রিটিশ ভারত ছাড়ো। ঐতিহাসিক ভারত ছাড়ো আন্দোলনের দিনেই উঠল ‘ভারত বাঁচাও’ নামক নয়া আন্দোলনের ডাক। AICCTU সহ সমস্ত কেন্দ্রীয় ট্রেড ইউনিয়নের ডাকে এই আন্দোলন চলছে। সংগঠনগুলির দাবী, ‘মোদী – শাহ-র খপ্পর থেকে ভারতকে মুক্ত কর! জনতার জন্য জনতার ভারত গড়ে তোলো!’

সংগঠনের পক্ষে জানানো হয়েছে, ‘আজ প্রায় ৮০ বছর পর সারা দেশ থেকে আবার একবার আওয়াজ উঠছে কর্পোরেট ফ্যাসিস্টরা ভারত থেকে দূর হঠো! গত পয়লা আগস্ট থেকে শ্রমিকদের রোজগার, অধিকার ও মর্যাদার দাবিতে দেশজুড়ে ‘শ্রমিক বাঁচাও গণতন্ত্র বাঁচাও’ প্রচার অভিযান চলেছে।

AICCTU সহ সমস্ত কেন্দ্রীয় ট্রেড ইউনিয়ন এর ডাকে আজ ৯ আগস্ট সারা দেশে মোদী সরকারের দেশ বিক্রির চক্রান্তের বিরুদ্ধে ‘ভারত বাঁচাও’ দিবস পালন হচ্ছে। AIKM সহ সারা দেশের প্রায় ২৫০টি কৃষক সংগঠনের সংগ্রামী মঞ্চ ‘সারা ভারত কিষাণ সংঘর্ষ সমন্বয় সমিতি’ (AIKSCC) -এর পক্ষ থেকে আজকের ঐতিহাসিক দিনটি ‘কিষাণ মুক্তি দিবস’ হিসাবে পালনের ডাক দেওয়া হয়েছে।’

তাঁদের এই দাবীর কারণ কী? ট্রেড ইউনিয়ন জানাচ্ছে, ‘কৃষি ক্ষেত্রের কর্পোরেটিকরন ও মোদী সরকারের পাশ করানো কৃষক বিরোধী সমস্ত অধ্যাদেশগুলির বিরুদ্ধে দেশ জুড়ে প্রতিবাদে নামছে কৃষক সংগঠনগুলি। শ্রমিক কৃষক সংগঠনগুলির সংহতিতে রোজগার ও মর্যাদার দাবিতে বিপ্লবী যুব অ্যাসোসিয়েশন দেশব্যাপী প্রতিবাদ দিবস পালন করছে আজ।’

পাশাপাশি ৯ আগস্ট ২০২০ বিপ্লবী ছাত্র সংগঠন অল ইন্ডিয়া সংগঠন স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন এর ৩০ বছর পূর্ণ হল। আইসা জানাচ্ছে , ‘আজ যেখানে নয়া জাতীয় শিক্ষা নীতি লাগু করে শিক্ষাকে ক্রমশ বেসরকারিকরণের দিকে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে, দেশ জুড়ে বেড়ে চলেছে বিদ্বেষ- বৈষম্য- বিভেদ- ঘৃণার আবহ; সেখানে আইসার সংগ্রামী ঐতিহ্য দিশা দেখায় সাবিত্রী ফাতিমা, ভগৎ সিং, আম্বেদকর চন্দ্রশেখরদের স্বপ্নের ভারত গড়ে তোলার।

সারা পৃথিবী জুড়ে আজকের দিনটি আদিবাসী মূলবাসী মানুষের অধিকারের জন্যও পালিত হচ্ছে। বন অধিকার আইন, এনভায়রনমেন্টাল ইমপ্যাক্ট অ্যাসেসমেন্ট নোটিফিকেশন এ ব্যাপক বদল এনে ক্রমশ আদিবাসী মানুষদের অধিকার থেকে উৎখাত করে চলেছে মোদী সরকার। এর বিরুদ্ধে গড়ে উঠছে সংগঠিত প্রতিরোধ।

আমাদের দেশেও তাই এই দিনটি বিশেষ তাৎপর্য রাখে। দেশ বাঁচাও, সংবিধান বাঁচাও, গণতন্ত্র বাঁচাও। জনতার ভারত গড়ে তোলার সংগ্রাম তীব্রতর কর।’

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা