নয়াদিল্লি: আগামী ২২ নভেম্বর দিনটি হতে চলেছে ভারতীয় ক্রিকেটের একটি ল্যান্ডমার্ক ডে। ক্রিকেটের স্বর্গোদ্যান ইডেন গার্ডেন্সে দেশের প্রথম ঐতিহাসিক দিন-রাতের টেস্ট ম্যাচের সাক্ষী থাকতে চলেছেন ক্রিকেট অনুরাগীরা। আর এই পিঙ্ক বল টেস্টের হাত ধরেই দর্শক ফিরবে কৌলিন্য হারানো টেস্ট ক্রিকেটে। এমনটাই জানিয়েছিলেন ভারতীয় ক্রিকেটের ‘দ্য ওয়াল’ রাহুল শারদ দ্রাবিড়। শুধু দ্রাবিড় নন, এমন মতামতের স্বপক্ষে দেশের প্রায় সকল প্রাক্তন থেকে বর্তমান ক্রিকেটারেরা। কিন্তু একদা সতীর্থ দ্রাবিড়ের এমন বক্তব্যের স্বপক্ষে নন ‘টার্বুনেটর’ হরভজন সিং।

২০০১ ভারত সফরে স্টিভ ওয়ার অস্ট্রেলিয়ার দুঃস্বপ্ন লেখা ছিল হরভজনের হাতে। সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে ইডেন গার্ডেন্সেই টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম ভারতীয় বোলার হিসেবে হ্যাটট্রিকের নজির গড়েছিলেন ‘পঞ্জাব কা পুত্তর’। সেই অভিজাত ইডেনের বাইশ গজেই শুভ সূচনা হতে চলেছে দেশের প্রথম পিঙ্ক বল টেস্টের। কিন্তু তাতে কী, হরভজনের কথায়, ‘সন্দেহ নেই যে এটা দারুণ পরীক্ষামূলক উদ্যোগ। তবে পিঙ্ক বল টেস্ট স্টেডিয়ামে দর্শক সমাগম করবে কীনা, তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে।’

টার্বুনেটরের কথায়, ‘আমার মনে হয় না পিঙ্ক বল মাঠে বিশেষ দর্শক টানতে সক্ষম হবে। টেস্ট ক্রিকেটের জন্য বরং অন্য কিছু করতে হবে। জনপ্রিয়তা ফেরাতে ছোট কেন্দ্রে টেস্ট ক্রিকেট আয়োজনের ব্যবস্থা করতে হবে। তবেই দেশের ক্রিকেট তারকাদের দেখতে মাঠ ভরাবে দর্শক।’ এপ্রসঙ্গে উদাহরণ টেনে হরভজন বলেন, ‘আপনি যদি মোহালির পরিবর্তে অমৃতসরে ম্যাচ আয়োজন করেন, অনেক বেশি মানুষ খেলা দেখতে আসবে। ফর্ম্যাট যাই হোক না কেন, লাল বল কিংবা পিঙ্ক বল তারা দেখবে না। তোমাকে বুঝতে হবে যেখানে সাধারণ মানুষের মধ্যে অধিকাংশ অফিস যাত্রী সেখানে সকাল কিংবা বিকেলের সেশনে মাঠে লোক আনা সম্ভব নয়।’

টেস্ট ক্রিকেটে দর্শক টানতে শক্তিশালী প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে সিরিজ বন্দোবস্ত করার দাবিও জানিয়েছেন টার্বুনেটর। পাশাপাশি স্টেডিয়ামে টয়লেটের উপযুক্ত ব্যবস্থা যাতে থাকে, সেদিকেও নজর দিতে বলেছেন ২০০১ অস্ট্রেলিয়া সিরিজের নায়ক। তবে হরভজন সন্দিহান থাকলেও টেস্ট ক্রিকেটের প্রসারে পিঙ্ক বল টেস্টের ভূমিকা নিয়ে এতটুকু সন্দেহ নেই বোর্ড প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের। ঘরের মাঠ ইডেন গার্ডেন্সে প্রথম দিন-রাতের টেস্ট আয়োজন ঘিরে কোনওরকম খামতি রাখছেন না মহারাজ। ইডেনে বেল বাজিয়ে ঐতিহাসিক টেস্টের সূচনা করবেন প্রতিপক্ষ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। প্যারাট্রুপার থেকে নেমে দুই দেশের অধিনায়কের হাতে বল তুলে দেবেন সেনা জওয়ানরা।

এছাড়াও স্মরণীয় রাখতে ইডেন টেস্ট ঘিরে রয়েছে আরও আকর্ষণীয় পরিকল্পনা। অনলাইনে প্রথম তিনদিনের টিকিট নিঃশেষিত হয়ে গিয়েছে মুহূর্তের মধ্যে। চারদিন খেলা গড়ালে প্রতিদিনই ইডেনে ফুল হাউস দেখার সুযোগ মিলবে। সবমলিয়ে কলকাতার পাশাপাশি পিঙ্ক টেস্ট জ্বরে কাবু ‘প্রিন্স অফ ক্যালকাটা’ও খুশি গোটা ব্যবস্থাপনায়।