গ্যাংটক: ভোটে লড়বেন বাইচুং ভুটিয়া। আর সেই ভোটে লড়ার জন্য এবার নিজের জার্সি নিলামে তুললেন ভারতের প্রাক্তন ফুটবল ক্যাপ্টেন।

সিকিমে বিধানসভা নির্বাচনে দুটি কেন্দ্রে প্রার্থী হয়েছেন বাইচুং ভুটিয়া। এক সঙ্গে দুটি কেন্দ্রে প্রার্থী হচ্ছেন তিনি। ‘হামরো সিকিম পার্টি’র তরফ থেকে লড়বেন তিনি। বর্তমানে ই দলের প্রেসিডেন্ট বাইচুং। শনিবার তিনি তাঁর দুটি জার্সি নিলামে তুলেছেন। ভোটে লড়ার জন্যই ওই টাকা তুলছেন তিনি।

১১ এপ্রিল থেকে ভোট শুরু হচ্ছে সিকিমে। ২৪টি কেন্দ্রে প্রার্থী দিয়েছে বাইচুং-এর দল। সিকিমে মোট ৩২টি বিধানসভা কেন্দ্র রয়েছে ও একটি লোকসভা।

প্রায় ২০ বছর ধরে ফুটবল খেলেছেন তিনি। এদিন নিলামে তুলে তিনি বলেন, জার্সিগুলোর সঙ্গে অনেক আবেগ জড়িয়ে আছে।

শুক্রবারই মনোনয়ন জমা দিয়েছেন তিনি। জেতার ব্যাপারে সম্পূর্ণ আত্মবিশ্বাসী বাইচুং। মঙ্গলবার থেকে প্রচার শুরু করবেন তিনি। তাঁর দলের প্রতীক ‘হুইসল।’ গ্যাংটক ও তুমিং-লি কেন্দ্র থেকে লড়ছেন তিনি। এই দুই কেন্দ্রই তাঁর হৃদয়ের খুব কাছের বলে জানিয়েছেন বাইচুং।

গত লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন বাইচুং ভুটিয়া। কিন্তু হেরে যান। এরপরেই মাসখানেক আগে তৃণমূলের সঙ্গে সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করে দেন বাইচুং। এরপরেই হামারো সিকিম নামে নিজের পার্টি তৈরি করেন। সিকিমে ৩২ কেন্দ্রের বিধানসভা ভোট ১১ এপ্রিল। এই নির্বাচনে দুটি কেন্দ্র থেকে লড়ছেন বাইচুং। তাঁর নতুন পার্টিতে ফুটবলকেই গুরুত্ব দিয়েছেন। তাঁর প্রতীক রেফারির বাঁশি। জানা গিয়েছে, যে দুটি আসন থেকে লড়ছেন বাইচুং সেগুলি হল গ্যাংটক এবং টুমিন লিঙ্গ। তাঁদের স্লোগান, ‘নয়া সিকিম, হামরো সিকিম’।

পবন চামলিংয়ের সরকারের বিরুদ্ধে জিততে হামরো সিকিম পার্টির ওয়ার্কিং প্রেসিডেন্ট বাইচুংয়ের প্রতিশ্রুতিতে স্বচ্ছ রাজনীতি আর ফুটবল। বাইচুং বলেন, ‘আমার লক্ষ্য সিকিমকে দুর্নীতিমুক্ত করা। এটা আমার জন্মভূমি। তাই এই কাজ করাটা আমার কর্তব্যের মধ্যে পড়ে।’

১৯৯৪ থেকে সিকিমে ক্ষমতায় আছেন পবন চামলিং। তাই তাঁকে পরাজিত করা রীতিমত চ্যালেঞ্জ বাইচুংয়ের কাছে। চামলিং-ও দুটি কেন্দ্র থেকে ভোটে লড়ছেন।