স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: পুজো উদ্যোক্তাদে’র মধ্যে মতানৈক্য৷ ক্লাবে পরিচালনা’য় দুর্নীতির অভিযোগ৷ ক্লাব থেকে বহিষ্কার করা হয় বেশ কয়েকজন সদস্যকে৷ তারপরই নানা কারণ দেখিয়ে হুগলির উত্তরপাড়ার ফ্রেন্ডস ক্লাবের উদ্যোগে হওয়া ভদ্র কালীপুজো বন্ধ করার চক্রান্তে’র অভিযোগ৷ এক্ষেত্রে অভিযোগের তির বহিষ্কৃত সদস্যদের বিরুদ্ধে৷ পরে ন্যায় বিচার চেয়ে মামলা গড়ায় কলকাতা হাইকোর্টে৷ আদালতের নির্দেশে মেলে পুজো’র অনুমতি৷

৫৬ বছর পুরনো ফ্রেন্ডস ক্লাবের উদ্যোগে হয় কালীপুজো৷ কিন্তু এবার পুজো ঘিরে প্রথম থেকেই বাঁধার সম্মুখীন হতে হয় উদ্যোক্তাদে’র৷ ক্লাবেরই কিছু বহিষ্কৃত সদস্য এর জন্য দায়ী বলে মনে করছেন উদ্যোক্তা’রা৷ পুজো মণ্ডপ নাকি রাস্তা জুড়ে করা হচ্ছে৷ ফলে অসুবিধায় পড়তে হয় স্থানীয়দের৷ আদলতে তাই পুজো বন্ধের আবেদন করে জনস্বার্থ মামলা করেন ক্লাবের বহিষ্কৃত এক সদস্য৷ যদিও উত্তরপাড়া-কোতরং পুরসভা ক্লাবটিকে আগেই পুজোর অনুমতি দেয়েছিল৷

আরও পড়ুন: কলকাতা পুলিশে’র উদ্যোগ, ফুটবল প্রশিক্ষণে ৪ যুবক যাচ্ছে জার্মানি

কলকাতা হাইকোর্টে’র পুজো অবকাশকালীন বেঞ্চে বিচারপতি দেবাংশু বসাকের ডিভিশন বেঞ্চে সম্প্রতি মামলাটির শুনানি হয়৷ মামলাকারীর আইনজীবীর যুক্তি ছিল রাস্তা বন্ধ করে কালীপুজো হয়৷ ফলে বিপদে পড়তে হয় স্থানীয়দের৷ ফ্রেন্ডস ক্লাবের সভাপতি মৃদুল রেজের পক্ষে আইনজীবী অভিজিৎ লাইক আদালতে একটি নকশা দেখান৷ সেখান থেকেই স্পষ্ট মণ্ডপের পাশ দিয়ে গাড়ি ও মানুষ যাতায়াতের যথেষ্ট জায়গা রয়েছে৷ শুনানি শেষে বিচারপতি দেবাংশু বসাক নির্দেশ দেন অন্যান্যবারের মতো বিপ্লবী পুলিন মোহন ভট্টাচার্য এবং ভি.জি ক্রসিংয়ের এর মধ্যবর্তী অংশে এবারও কালীপুজো হতে কোনও বাঁদা নেই৷

আদালতের নির্দেশের পর উত্তরপাড়ার ভদ্রকালী ফ্রেন্ডস ক্লাবের সভাপতি মৃদুল রেজ বলেন, ‘‘মানুষের আবেগের সঙ্গে এই পুজো জড়িয়ে রয়েছে৷ ৫৬ বছর ধরে মণ্ডপেই বারো হাতের রালী মূর্তি বানানো হয়৷ কিছু স্বার্থপর,. দুর্নীতিবাজ মানুষ পুজো বন্ধ করতে চেয়েছিল৷ আদালতের রায়ের পরই পরিষ্কার আমরা কোনও বেআইনী কাজ করিনি৷’’ হাইকোর্টের রায়ে খুশির হাওয়া স্থানীয়দের মধ্যেও৷ আলোর উৎসবে ফের উজ্জ্বল হওয়ার অপেক্ষায় এলাকা৷

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।