বিশেষ প্রতিবেদন: ত্রিপুরার অন্যতম বিচ্ছিন্নতাবাদী দুই সংগঠন এটিটিএফ (অল ত্রিপুরা টাইগার ফোর্স) ও এনএলএফটি ( ন্যাশনাল লিবারেশন ফ্রন্ট অফ ত্রিপুরা)-এর পুরনো ঘাঁটি ধংস করেছে বাংলাদেশ সরকার। ফের আলোচনায় ভারত সীমান্ত এলাকার বাংলাদেশের গভীর সাতছড়ি অভয়ারণ্য। বারবার এই এলাকায় উত্তর পূর্ব ভারতের জঙ্গি সংগঠনগুলির ডেরায় মিলেছে বিপুল আগ্নেয়াস্ত্র।
ত্রিপুরায় উপজাতি এলাকার নির্বাচন (এডিসি ভোট) ঘিরে এনএলএফটি জঙ্গি সংগঠনের সক্রিয়তা উঠে এসেছে। বেশকিছু লিংকম্যান, জঙ্গি ধরা পড়েছে। বিষয়টি নিয়ে উদ্বিগ্ন ত্রিপুরার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা বিরোধী নেতা মানিক সরকার। শীর্ষ সিপিআইএম নেতা মানিকবাবুর তরফে বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব ও বিজেপি জোট সরকারের প্রতি সতর্কতা ছিল সীমান্ত এলাকায় জঙ্গি তৎপরতা বাড়ছে।
মানিকবাবু মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন বাংলাদেশ সীমান্ত এলাকায় জঙ্গিদের সক্রিয়তা নিয়ে দিল্লিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের কাছে বার্তা পাঠিয়েছিলেন, তাঁর বার্তায় তীব্র আলোড়ন ছড়িয়েছিল নয়াদিল্লি ও ঢাকায়।
বাংলাদেশে শেখ হাসিনার সরকার আগেই সিদ্ধান্ত নিয়েছে সন্ত্রাসবাদ দমনে জিরো টলারেন্স নীতির। ২০১৪ সাল থেকে শুরু হয়েছে ত্রিপুরা লাগোয়া সীমান্তের গভীরতম বনাঞ্চল সাতছড়ি অভয়ারণ্যে অভিযান। মোট ৬ দফা অভিযানে বিপুল পরিমাণ রকেট লঞ্চার, মেশিনগানের গুলি, কার্তুজ উদ্ধার হয়। সেই রেশ ধরেই মঙ্গলবার থেকে ভারত সীমান্ত লাগোয়া বাংলাদেশের  হবিগঞ্জ জেলার  চুনারুঘাট উপজেলার সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)অভিযান চালায়। তদন্তে প্রাথমিকভাবে উঠে এসেছে ভারতীয় বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনগুলির ভূমিকা।
সূত্রের খবর, বিজিবি মনে করছে এই আগ্নেয়াস্ত্র সম্ভারের সঙ্গে মিল রয়েছে ভারতের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন আলফার ব্যবহার করা অস্ত্রের। অসমের এই বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনটি এখন আলফা
(স্বাধীনতা) নামে পরিচিত। সংগঠনের নেতা পরেশ বড়ুয়া বাংলাদেশ সরকারের কাছে মোস্ট ওয়ান্টেড। শীর্ষ বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা ২০০৪ সালের চাঞ্চল্যকর দশ ট্রাক অস্ত্র মামলার মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত আসামী।
চট্টগ্রামের দশ ট্রাক অস্ত্র মামলা ও পরেশ বড়ুয়া:
২০০৪ সালে বাংলাদেশে চলছিল বিএনপি ও জামাত ইসলামি জোট সরকার। সেই সরকারের আমলে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ত্রিপুরা সংলগ্ন সাতছড়ি বনাঞ্চল হয়ে উত্তর পূর্ব ভারতে বিপুল আগ্নেয়াস্ত্র পাচারের পরিকল্পনা করে আলফা। কিন্তু সেই ষড়যন্ত্র বানচাল হয়। গোপনে বাংলাদেশ ত্যাগ করে পরেশ বড়ুয়া। এই দশ ট্রাক অস্ত্র মামলায় তৎকালীন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুতফুজ্জামান বাবর  ফাঁসির আসামী হয়ে বন্দি।
মূলত দশেরা ট্রাক অস্ত্র চালান বানচালের পর থেকেই বাংলাদেশের গোপন ঘাঁটি থেকে সরতে শুরু করে উত্তর পূর্ব ভারতের জঙ্গি সংগঠনগুলি। তাদের গোপন অস্ত্রভাণ্ডার সাতছড়ি বনে থেকে গিয়েছে। ত্রিপুরায় মানিক সরকারের মুখ্যমন্ত্রীত্বের আমলে বিচ্ছিন্নতাবাদীরা গুটিয়ে ছিল। অভিযোগ, সরকার পরিবর্তনের পর সম্প্রতি বিচ্ছিন্নতাবাদীরা অস্তিত্ব জাহির করছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।