প্রসেনজিৎ চৌধুরী: ছবিতে দেখা যাচ্ছে ভারতীয় মৎস্যজীবী প্রণব মণ্ডলকে ঘিরে রেখেছেন বাংলাদেশ পুলিশের কর্মীরা। তাঁকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে জেলে। মুর্শিদাবাদের জলঙ্গীর বাসিন্দা প্রণব মণ্ডলের বাড়ি ছিড়াচড় গ্রামে। তার পিতার নাম বসন্ত মণ্ডল।

এমনই তথ্য প্রকাশ করেছেন সীমান্তের ওপারে রাজশাহীর চারঘাট থানার ওসি সমিত কুমার কুণ্ডু। তিনি আরও জানান, পদ্মার আন্তর্জাতিক জল সীমান্ত পেরিয়ে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশ করেন প্রণব মণ্ডল।

ঢাকায় বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান জানিয়েছেন, পুরো ঘটনাটি অনভিপ্রেত। এর থেকে দুই দেশের সুসম্পর্কে কোনও প্রভাব পড়বে না।

বিজিবি কেন গুলি চালাল তাতে বিএসএফ কর্তারা চিন্তিত। কী করে ফ্ল্যাগ মিটিং চলাকালীন এমন হল তারই জবাব চাওয়া হয়েছে। বিজিবির গুলিতে শহিদ বিজয় ভান সিং উত্তরপ্রদেশের বাসিন্দা। তাঁর পরিবারেও শোকের ছায়া।

বাংলাদেশের চারঘাট থানার ওসি সমিত কুণ্ডু আরও জানিয়েছেন, পদ্মায় সরকার ঘোষিত নিষিদ্ধ সময়ে মা ইলিশ শিকার করছিলেন। প্রণবের সঙ্গে আরও দুজন ছিল। তারাও সীমান্ত পেরিয়ে এলেও পরে ভারতের দিকে চলে যায়। পরে ধৃত প্রণবের বিরুদ্ধে বিজিবির চারঘাট বিওপির হাবিলদার হুমায়ুন কবীর বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

সীমান্তের এপারে মুর্শিদাবাদের জলঙ্গীর ছিড়াচড় গ্রামে থাকা প্রণব মণ্ডলের পরিবার উদ্বিগ্ন। তাঁর চান দ্রুত ঘরের ছেলে ঘরে ফিরে আসুক। প্রণবকে দেশে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করা হচ্ছে এমনই তারা জানতে পেরেছেন।

বৃহস্পতিবার পদ্মায় ইলিশ ধরার সময় জল সীমাম্ত পার করে তিন ভারতীয় মৎস্যজীবী বাংলাদেশের দিকে ঢুকে পড়েন। তাদের ঘিরে নেয় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ। দু জন চলে আসতে পারলেও প্রণব মণ্ডল পারেননি।

সেই খবর পেয়ে বিএসএফের তরফে দ্রুত যোগাযোগ করা হয়ে বিজিবির সঙ্গে। দু ফ্ল্যাগ মিটিংয়ের সময় বাংলাদেশ বর্ডার গার্ডের গুলি চালানোর ঘটনায় তীব্র উত্তেজনা ছড়ায়।