মোদী ও নেতানিয়াহু

জেরুজালেমঃ  বন্ধ করে দেওয়া হল প্রধানমন্ত্রীর ফেসবুক অ্যাকাউন্ট। জাতিগত বিদ্বেষ ছড়ানোর দায়ে ইজরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু’র পেজ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন তাঁর অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে লেখেন, আরবরা ইজরায়েলের মহিলা, পুরুষ এবং শিশুদের ধ্বংস করে দিচ্ছে। আর তাই তাদের বিরুদ্ধে ইজরায়েলের নাগরিকদের রুখে দাঁড়াতে হবে। তাঁর এই মন্তব্যের পরেই পেজ বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ফেসবুক।

বেশ কয়েকটি সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, ফেসবুকের কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড ভাঙার ফলেই নিজে থেকেই বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু’র পেজটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তবে ইজরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর দাবি, তিনি এমন কোনও পোস্ট ফেসবুক পেজে দেননি। ইজরায়েলের রেডিও কান রিসেট বেটকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, এই পোস্টের জন্য তিনি নন বরং তাঁর দফতরের কোনও কর্মীর ভুল দায়ী।

ডানপন্থী দল লিকুদ পার্টির চেয়ারম্যান নেতানিয়াহু আগামী সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া সাধারণ নির্বাচনের জন্য লড়ছেন। নির্বাচনে জনসমর্থন পেতে কট্টর জাতীয়তাবাদী বক্তব্য দিচ্ছেন ৬৯ বছর বয়সী এই নেতা। এর আগে মঙ্গলবার তিনি ঘোষণা করেছেন, নির্বাচনে জিতলে তিনি ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরের জর্ডান উপত্যকাকে ইজরায়েলের সঙ্গে যুক্ত করবেন।

গত ৯ এপ্রিলের নির্বাচনে নেতানিয়াহু পঞ্চমবারের মতো জয়ী হন। তবে তাঁর দল ১২০ আসনবিশিষ্ট নেসেটে (ইজরায়েলের পার্লামেন্ট) সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ায় সরকার গঠন করতে পারেনি। পরে তিনি ছয় মাসের জন্য সংসদ ভেঙে দেন। ১৭ সেপ্টেম্বর সে দেশে আগাম নির্বাচন হবে। এই নির্বাচন উপলক্ষে নেতানিয়াহুর লিকুদ পার্টির সঙ্গে সেন্টার-রাইট ব্লু এবং হোয়াইট পার্টির তীব্র লড়াই চলছে। নেতানিয়াহু ফের জিতে আসতে জাতীয়তাবাদ উসকে দিচ্ছে বলে ইতিমধ্যে দাবি তুলেছেন তাঁর বিরোধীরা। যদিও এই বিষয়টি মোটেই কর্ণপাত করতে চায় না ইজরায়েলের প্রধানমন্ত্রীর দল।