কলকাতা: লকডাউন কাটিয়ে কাজে ফিরেছেন টলিউডের শিল্পীরা। শুরু হয়েছে সিরিয়ালের শ্যুটিং। ঝুঁকি তো আছেই, তবে সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং সহ সব নিয়ম মেনেই চলছে শ্যুটিংয়ের কাজ। এর মধ্যেও করোনা আক্রান্ত হলেন টলিউডের একাধিক শিল্প।।

সূত্রের খবর, টলিউডেএই মুহূর্তে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন অন্তত ১১ জন। এর মধ্যে রয়েছেন ‘কৃষ্ণকলি’ ধারাবাহিকের অশোক অর্থাৎ ভিভান ঘোষ, ‘কনে বউ’-এর মাহি অর্থাৎ নেহা আমনদীপ, ‘সিংহলগ্না’র মেকআপ শিল্পী দীপঙ্কর রায়।

এই তিনজনেরই কোনও উপসর্গ ছিল না বলে জানা গিয়েছে। করোনা পজিটিভ হওয়ার আগে শ্যুটিংও করেছেন এরা। ২১ জুলাই পর্যন্ত ১৩ নম্বর স্টুডিয়োতে ‘কৃষ্ণকলি’র শুটিং করেছেন ভিভান। কিন্তু সেদিন জ্বর আসায় করোনা টেস্ট করেন। রিপোর্ট পজিটিভ আসে। তারপর থেকে হোম আইসোলেশনে আছেন তিনি।

 

বিনা উপসর্গ নিয়েই কাজ করছিলেন ‘সিংহলগ্না’র মেকআপ শিল্পী দীপঙ্কর রায়, ১৬ জুলাই জ্বর আসায় ওষুধ খান তিনি। শ্যুটিং-এও ফেরেন। কিন্তু গন্ধ ও খাবারে স্বাদ না পাওয়ায় চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। টেস্ট রির্পোট পজ়িটিভ আসায় দীপঙ্করও গৃহবন্দি। তবে তার আগেই একাধিক শিল্পীর মেকা আপ করেছেন তিনি। এদের মধ্যে রয়েছেন অভিনেত্রী তনুকা চট্টোপাধ্যায়, কন্যাকুমারী চন্দ, সুদীপ্তা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এমন ঝুঁকির মুখে ধারাবাহিক ছেড়ে দিয়েছেন ‘সিংহলগ্না’র কুন্তলা অর্থাৎ কন্যাকুমারী চন্দ। দীপঙ্করের রিপোর্ট পজ়িটিভ হওয়ার পরই এমন সিদ্ধান্ত নেন তিনি। তাঁর এক তিন বছরের মেয়ে ও শ্বশুর-শাশুড়ি রয়েছেন। তাই কাজ ছেড়ে দেন তিনি।

আরও জানা গিয়েছে, গত রবিবার অবধি শুটিং করেছেন ‘কনে বউ’-এর মাহি অর্থাৎ নেহা। তার দু’দিন পরে বুধবার তাঁর করোনা পজ়িটিভ হওয়ার খবর আসে। খবর পাওয়া মাত্র আজ শুক্রবার শুটিংয়ের ডেট বাতিল করেছেন ধারাবাহিকের আর এক অভিনেত্রী সোনালি চৌধুরী। তিনি নেহার সঙ্গে অভিনয় করেছিলেন। তাই তিনিও করোনা টেস্ট করাচ্ছেন।

 

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।