ফাইল ছবি

কলকাতা: তৃণমূল সরকার ক্ষমতার আসার পর থেকে রাজ্যের সরকারি স্কুলগুলির শিক্ষক-শিক্ষাকর্মীদের মাস পয়লায় বেতন-নীতি চালু করে রাজ্য সরকার। একমাত্র আর্থিক বছরের শেষের মাসটিতেই কখনও কখনও দু’একদিন পরে বেতন হয়। কিন্তু ফেব্রুয়ারির বেতন মার্চের ২ তারিখেও পাননি শিক্ষকরা। বেসরকারি সংবাদামাধ্যমে এই খবর প্রকাশিত হতেই ব্যবস্থা নিলেন শিক্ষামন্ত্রী।

শিক্ষকরা যে ২ মার্চ অর্থাৎ সোমবারও বেতন পাননি প্রথমে তা জানতেন না শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। বেসরকারি সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হওয়ার পরই বিষয়টি নজরে আসে শিক্ষামন্ত্রীর। একইসঙ্গে বেতন দিয়ে দেওয়া উচিত ছিল বলেও জানান শিক্ষামন্ত্রী। পার্থ চট্টোপাধ্যায়। একাধিক শিক্ষক সংগঠনের প্রতিনিধিরাও বেতন না পাওয়ায় ক্ষোভের কথা জানান। হঠাৎ কেন রাজ্যের এই ভূমিকা তা নিয়েও প্রশ্ন তুলতে শুরু করেন শিক্ষদের একাংশ।

এদিকে, বেসরকারি সংবাদমাধ্যমের তরফে শিক্ষকদের মার্চের ২ তারিখেও ফেব্রুয়ারির বেতন না হওয়ার বিষয়টি জেনে তড়িঘড়ি ব্যবস্থা নেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। এরপরই ডিআইদের সঙ্গে কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী। কেন সোমবারও শিক্ষকদের বেতন হল না তা জানতে চান তিনি। সোমবারের মধ্যেই শিক্ষকদের বেতনের ব্যবস্থা করতে নির্দেশ দেন তিনি।

২০১১ সালে রাজ্যে বাম সরকারের পতনের পর ক্ষমতায় আসে তৃণমূল। রাজ্যের শিক্ষক সমাজের মন জয় করতে তৎপর হন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজ্য সরকারি স্কুলগুলির শিক্ষক-শিক্ষিকা ও শিক্ষাকর্মীদের মাস পয়লায় বেতন দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় তাঁর সরকার। সেই মতো মাসের শুরুতেই বেতন পাচ্ছিলেন শিক্ষকরা। শুধুমাত্র আর্থিক বছরের শেষ মাসেই বেতন পাওয়ার দিন একটু পিছোত।

তাল কাটল এই প্রথমবার। ফেব্রুয়ারি মাসের বেতন মিলল না মার্চের ২ তারিখেও। তবে বিষয়টি জেনেই তড়িঘড়ি পদক্ষেপ করেছেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। শিক্ষামন্ত্রীর এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন শিক্ষকদের একাংশও।