মুম্বই: বিজয় হাজার ট্রফির পর সৈয়দ মুস্তাক আলি টি-২০’র গ্রুপ লিগ থেকেই যে বিদায় নিতে চলেছে বাংলা, তা আগেই নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল৷ তাই বলে দুর্বল পুদুচেরির বিরুদ্ধে হারতে হবে অভিমন্যু ঈশ্বরনদের, এতটাও ভাবা সম্ভব ছিল না বাংলার ক্রিকেটপ্রেমীর পক্ষে৷ ইডেনে ঐতিহাসিক ডে-নাইট টেস্ট নিয়ে যখন মাতোয়ারা সিএবি তথা বাংলার ক্রিকেটমহল, তথন মুম্বইয়ে এমনই বিপর্যয়ের মুখে বাংলা ক্রিকেট দল৷

বান্দ্রা কুর্লা কমপ্লেক্সে মুস্তাক আলি টি-২০’র ম্যাচে পুদুচেরির কাছে ৪ উইকেটে পরাজিত হল বাংলা৷ টস জিতে পুদুচেরি প্রথমে ব্যাট করতে পাঠায় বাংলাকে৷ নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটের বিনিময়ে ১৩২ রানে আটকে যায় ঈশ্বরনের নেতৃত্বাধীন বাংলা দল৷ পুদুচেরির ডান হাতি অফ-স্পিনার সুরেশ কুমারের ঘুর্ণির মোকাবিলা করতে ব্যর্থ বাংলার ব্যাটসম্যানরা৷ একা ওপেনার বিবেক সিং কিছুটা লড়াই চালান৷ বাকিদের কাউকেই আত্মবিশ্বাসী দেখায়নি৷

আরও পড়ুন: হাসিনার নিরাপত্তা খতিয়ে দেখতে ইডেনে বিশেষ প্রতিনিধি দল

জবাবে ব্যাট করতে নেমে পুদুচেরি ২ বল বাকি থাকতে উত্তেজক জয় তুলে নেয়৷ ১৯.৪ ওভারে ৬ উইকেটের বিনিময়ে ১৩৫ রান তুলে ম্যাচ জিতে যায় তারা৷ অধিনায়কোচিত হাফ-সেঞ্চুরি করেন দামোদরেন রোহিত৷ শাহবাজ আহমেদ বল হাতে নজর কাড়েন৷

বাংলার হয়ে সর্বোচ্চ ৪৩ রান করেন বিবেক সিং৷ ২৫ বলের ইনিংসে তিনি ৩টি চার ও ৪টি ছক্কা মারেন৷ অভিমন্যু ঈশ্বরন ২৮ রান করলেও ৩০ বল খরচ করেন৷ অগ্নিভ পান ২৬ বলে ১৭ রানের ধীর ইনিংস খেলে সাজঘরে ফেরেন৷ শ্রীবৎস গোস্বামী ২, মনোজ তিওয়ারি ৬ ও শাহবাজ আহমেদ শূন্য রানে আউট হন৷ অর্ণব নন্দী ১৮ বলে ২১ ও অয়ন ভট্টাচার্য্য ৮ বলে ৮ রান রান করে অপরাজিত থাকেন৷ সুরেশ কুমার ১৭ রানে ৪ উইকেট দখল করেন৷

আরও পড়ুন: স্বপ্নের বোলিং কম্বিনেশন, শামি-যাদবদের বিরাট প্রশংসায় কোহলি

পুদুচেরিকে কার্যত একার হাতে জয়ের লক্ষ্যে টেনে নিয়ে যান রোহিত৷ তিনি ৫টি চার ও ৪টি ছক্কার সাহায্যে ৪৪ বলে ৫৫ রান করে আউট হন৷ সুরেশ কুমার ১৬ ও বিনয় কুমার অপরাজিত ১৫ রান করেন৷ শাহবাজ আহমেদ ১৬ রানে ২টি উইকেট দখল করেন৷ ৩৪ রানের বিনিময়ে ২টি উইকেট নেন সায়ন ঘোষ৷ ১টি করে উইকেট পেয়েছেন ইশান পোড়েল ও অর্ণব নন্দী৷