বালুরঘাট: তৃণমূল ছেড়ে যাওয়ার ৬ মাসের মধ্যেই গেরুয়া শিবির ছাড়লেন দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদের পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ মফিজুদ্দিন মিঞা। প্রাক্তন তৃণমূল সভাপতি বিপ্লব মিত্রের হাত ধরে ৬ মাস আগে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন জেলা পরিষদের এই পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ।

বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর ৬ মাস কাটতে না কাটতেই এবার বিজেপির সঙ্গ ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিলেন মফিজুদ্দিন৷ মফিজুদ্দিনের আচমকা এই সিদ্ধান্তে বেশ খানিকটা ব্যাকফুটে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা বিজেপি নেতৃত্ব৷ শুক্রবার দিওর এলাকায় নিজের কার্যালয়ে সাংবাদিক বৈঠক করেন মফিজুদ্দিন৷ সেই সাংবাদিক বৈঠকেই গেরুয়া শিবির ছাড়ার কথা জানান৷

চলতি বছরের ২৪ জুলাই প্রাক্তন তৃণমূল নেতা বিপ্লব মিত্রের সঙ্গে দিল্লিতে যান মফিজুদ্দিন মিঞা৷ দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদের সভাধিপতি লিপিকা রায় ও পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ মফিজুদ্দিন-সহ বেশ কয়েকজন সেদিন তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। তবে তাল কাটল কয়েক মাসের মধ্যেই৷ বিজেপিতে যোগ দেওয়ার মাস তিনেকের মধ্যেই অধিকাংশ সদস্য পুনরায় তৃণমূলে ফিরে আসেন৷

তবে জেলা পরিষদের সভাধিপতি ও পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ-সহ ৫ সদস্য এতদিন বিজেপিতেই ছিলেন৷ তবে নাগরিকত্ব আইন তৈরি হতেই এবার মফিজুদ্দিন মিঞা বিজেপি ছাড়ার কথা ঘোষণা করলেন। যদিও তাঁর বিজেপি সঙ্গ ত্যাগের সঙ্গে নাগরিক্তব আইনের কোনও সম্পর্ক নেই বলেই দাবি মফিজুদ্দিনের৷ বিজেপিতে থেকে তাঁকে কোনও সম্মান দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ তাঁর৷ তবে বিজেপি ছাড়লেও তিনি তৃণমূলে ফের ফিরে যাবেন কিনা তা স্পষ্ট করেননি মফিজুদ্দিন৷

মফিজুদ্দিন মিঞাকে মুখ করে জেলার সংখ্যালঘু ভোটব্যাঙ্ককে নিজেদের দিকে আনার চেষ্টা করেছিল তৃণমূল৷ তবে আচমকা তাঁর এই দলত্যাগে বিজেপির সেই আশা বেশ খানিকটা ধাক্কা খেল বলেই মনে করছে জেলার রাজনৈতিক মহল৷ দক্ষিণ দিনাজপুরের বিজেপি সভাপতি বিনয় বর্মন জানিয়েছেন, মফিজুদ্দিন মিঞার বিজেপি ছাড়া প্রসঙ্গে তাঁর কিছু জানা নেই৷ দল ছাড়া নিয়ে মফিজুদ্দিনও তাঁকে কিছুই জানাননি বলে দাবি জেলা বিজেপির ওই নেতার৷