অভিষেক কোলে: ইডেনে মধ্যপ্রদেশের বিরুদ্ধে রঞ্জির প্রথম দিনটা যদি অভিমন্যু ঈশ্বরণ ও কৌশিক ঘোষের হয়, তবে দ্বিতীয় দিনটা শুধুই মনোজময়। লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যানদের সঙ্গে নিয়ে মনোজের লড়াই বাংলার রঞ্জি অভিযানকে বাড়তি মাত্রা এনে দিল সন্দেহ নেই।

প্রথম দিনের শেষে ৭০ বলে ৩১ রান করে অপরাজিত ছিলেন মনোজ। তার পর থেকে খেলতে নেমে দ্বিতীয় দিনের সকালেই হাফসেঞ্চুরি পূর্ণ করেন তিনি। ৯১ বলে ৫০ রান করা তিওয়ারি লাঞ্চের কিছুক্ষণ পরেই ব্যক্তিগত শতরানের গণ্ডি টপকে যান। ১৬৬ বলে ১০১ রান করার পথে মনোজ ১২টি চার ও ১টি ছক্কা মারেন। প্রথম শ্রেনির কেরিয়ারে তাঁর এটি ২৫ তম শতরান।

যদিও সেঞ্চুরি করার পর দায়িত্ব কাঁধ থেকে ঝেড়ে ফেলেননি বাংলা অধিনায়ক। বরং নতুন উদ্যমে নিজের ইনিংসকে টেনে নিয়ে যান তিনি। অপর প্রান্ত দিয়ে মনোজকে সঙ্গত করার মতো নির্ভরযোগ্য কেউ না থাকলেও চাপটা নিজের কাঁধেই বয়ে বেড়ান তিনি।

গত দিনে মনোজের অপরাজিত সঙ্গী অনুষ্টুপ মজুমদার দ্বিতীয় দিনে খুব বেশিক্ষণ ক্রিজে টিকে থাকতে পারেননি। ব্যক্তিগত ১৬ রানে আউট হন তিনি। বিবেক সিংকে সঙ্গে নিয়ে আরও ৫৫ রান যোগ করেন বাংলা দলনায়ক। বিবেক আউট হন ৪৫ বলে ২৮ রান করে।

বি অমিত মাত্র ১৪ বল থিতু হন ক্রিজে। সেঞ্চুরি করে অপর প্রান্তে ব্যাট করা মনোজকে সঙ্গ দেওয়ার বদলে বাড়তি আগ্রাসী হতে গিয়ে উইকেট দিয়ে আসেন তিনি। সাজঘরে ফেরার আগে অমিত ১১ রান যোগ করেন দলের ইনিংসে। দিন্দা ব্যাট করতে আসেন স্বভাবসুলভ আস্ফালন সঙ্গে নিয়ে। ১১ বলে ৯ রান করে দিন্দা আত্মসমর্পণ করেন।

দিন্দা যখন আউট হন তখন মনোজের ব্যক্তিগত সংগ্রহ ২৫০ বলে ১৬৬ রান। দ্বিশতরানের সম্ভাবনা তখন অনেক দূর গ্রহের দেখাচ্ছিল। তবে হাল ছাড়েননি তিওয়ারি। ঈশান পড়েলকে আড়াল করে একপ্রান্ত দিয়ে ঝড় তোলেন মনোজ। শেষ ২৯ বলে ৩৫ রান যোগ করে ব্যাক্তিগত ডাবল সেঞ্চুরি পূর্ণ করার পাশাপাশি দলকে পাঁচশো রানের গণ্ডি পার করান তিনি।

শেষমেশ ২৭৯ বলে ২০১ রান করে অপরাজিত থাকেন মনোজ। অধিনায়কোচিত ইনিংসে ২০টি চার ও ৪টি ছক্কা মারেন তিনি। ইশান নটআউট থাকেন ৫ বলে ১ রান করে। বাংলা ১৪৯.৩ ওভারে ৯ উইকেটে ৫১০ রান তুলে প্রথম ইনিংসের সমাপ্তি ঘোষণা করে।

পার্টটাইম স্পিনার শুভম শর্মা মধ্যপ্রদেশের হয়ে ৫৯ রানে ৫ উইকেট দখল করেন। ২টি উইকেট নিয়েছেন কুলদীপ সেন। একটি করে উইকেট আবেশ খান ও মিহির হিরওয়ানির। শেষবেলায় পালটা ব্যাট করতে নেমে এমপি বিনা উইকেটে ১৫ রান তুলে দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ করে। আর্যমান বিড়লা ৮ ও অঙ্কিত দানে ৭ রানে অপরাজিত রয়েছেন।