কলকাতা: ক্রিকেটের নন্দনকাননে স্বপ্নের জয়৷ ‘দিল্লি জয়’ করে বঙ্গক্রিকেটকে নিউ ইয়ার গিফট দিল মনোজ তিওয়ারির বাংলা৷ ইডেনে রঞ্জি ট্রফির গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে রেকর্ড ৩২২ রান তাড়া করে দিল্লিকে সাত উইকেট হারাল মনোজ অ্যান্ড কোং৷ সেই সঙ্গে নক-আউটের সম্ভাবনা জিইয়ে রাখল সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের বাংলা৷ সাত ম্যাচে বাংলার সংগ্রহে ২২ পয়েন্ট৷ অর্থাৎ শেষ ম্যাচে ইডেনে পঞ্জাবের বিরুদ্ধে ছ’ পয়েন্ট তুলতে পারলে কোয়ার্টার ফাইনালে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে মনোজদের৷

আরও পড়ুন: দিল্লি জয়ে দৃঢ়প্রত্যয়ী দিন্দা

দিল্লি জয়ে ব্যাট হাতে বাংলাকে নেতৃত্ব দেন অভিমন্যু ঈশ্বরণ৷ বুধবার তাঁর দুরন্ত সেঞ্চুরিতে রঞ্জি ট্রফিতে সর্বাধিক রান তাড়া করে ম্যাচ জিতে ইতিহাস গড়ল বাংলা৷ এর আগে রঞ্জিতে ৩২২ রান তাড়া করে কোনও ম্যাচ জেতেনি বাংলা৷ এর আগে রঞ্জি ট্রফিতে বাংলার সর্বাধিক ৩০৭ রান তাড়া করে জিতেছিল৷ ২০০৬-০৭ মরশুমে কর্নাটকের বিরুদ্ধে এই জয় পেয়েছিল দীপ দাশগুপ্তের বাংলা৷

মঙ্গলবার বল হাতে বাংলাকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন অশোক দিন্দা৷ দ্বিতীয় ইনিংসে দিল্লির পাঁচটি উইকেট নিয়েছিলেন বাংলার এই অভিজ্ঞ পেসার৷ ম্যাচে মোট ৯ উইকেট দিন্দার৷ বুধবার ব্যাট হাতে বাংলাকে স্বপ্নের শুরু দিয়ে ইতিহাস গড়ার দিতে এক ধাপ এগিয়ে দেন দুই ওপেনার অভিষেক রমন ও ঈশ্বরণ৷ ১২১ রানের ওপেনিং পার্টনারশিপে দিল্লি জয়ের স্বপ্ন দেখতে শুরু করে বাংলা৷ সেই স্বপ্নকে সত্যি করে তোলে ঈশ্বরণ ও অনুষ্ঠুপ মজুমদার জুটি৷ শেষ পর্যন্ত ১৮৩ রানে অপরাজিত থেকে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন ঈশ্বরণ৷ ২১১ বলের আক্রমণাত্মক ইনিংসে ২৩টি বাউন্ডারি ও দু’টি ওভার বাউন্ডারি মারেন বছর তেইশের বাংলার এই ডানহাতি৷ ঈশ্বরণের ব্যাটিংয়ের সামনে অসহায় ছিলেন দিল্লির বোলাররা৷ প্রথমশ্রেণির ক্রিকেটে এটি নবম সেঞ্চুরি ঈশ্বরণের৷

দিল্লি জয়ে বাংলার দুই নায়ক অভিমন্যু ঈশ্বরণ ও অশোক দিন্দা৷

আরও পড়ুন: ঈশ্বরণের ব্যাটে দিল্লি জয়ের মঞ্চ প্রস্তুত

ওপেনিং জুটিতে সেঞ্চুরি পার্টনারশিপের পর চতুর্থ উইকেটে অনুষ্টুপের সঙ্গে অবিভক্ত ১৮৬ রান যোগ করে বাংলাকে ঐতিহাসিক ম্যাচ উপহার দেন ঈশ্বরণ৷ তাঁর আক্রমণ্মক ইনিংসের ফলে সময়ের আগেই দিল্লির বিরুদ্ধে অপ্রত্যাশিত জয় তুলে নেয় বাংলা৷ অভিষেক রমন ৫২ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস খেলে প্যাভিলিয়নে ফেরার পর দ্রুত দুই উইকেট হারায় বাংলা৷ মাত্র ১৬ রানের ব্যবধানে সুদীপ চট্টোপাধ্যায় ও মনোজ তিওয়ারির উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় বাংলা৷ কিন্তু ঈশ্বরণ ও অনুষ্টুপের চওড়া ব্যাটে রেকর্ড রান তাড়া করে ম্যাচ জিতে নেয় বাংলা৷ ঈশ্বরণকে যোগ সঙ্গত দেন অনুষ্টুপ৷ ৬৯ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস খেলেন তিনি৷