স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: উত্তর ২৪ পরগণার ভাটপাড়ায় জারি ১৪৪ ধারা৷ এরই মধ্যে মঙ্গলবার রাতে ফের ভাটপাড়ার মানিকপীর এলাকায় বোমাবাজির ঘটনা ঘটে৷ তবে দ্রুত ঘটনাস্থলে বিশাল পুলিশবাহিনী পৌঁছে ওই এলাকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে কে বা কারা ওই বোমা বাজির ঘটনা ঘটিয়েছিল, তা জানা যায়নি৷ পুলিশ ওই দুষ্কৃতীদের খোঁজ শুরু করেছে।

এদিকে ভাটপাড়ার লাগাতার সংঘর্ষ ও হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত ৩০৯টি পরিবারকে আর্থিক সহায়তা করল রাজ্য সরকার। দলমত নির্বিশেষে প্রথম দফায় ৩০৯টি পরিবারের সদস্যদের হাতে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রত্যেক পরিবার পিছু ৬৩০০ টাকার চেক প্রদান করা হল৷ ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যরা রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে এই আর্থিক সহায়তা পেয়ে খুশি। বারাকপুরের পুলিশ কমিশনার মনোজ বার্মা নিজে হাতে ভাটপাড়া থানা থেকে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের হাতে ওই চেক তুলে দেন।

বুধবার সন্ধেয় পুলিশ কমিশনার ওই চেক পরিবারের সদস্যদের হাতে তুলে দিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, “প্রথম দফায় ৩০৯টি পরিবারের সদস্যদের রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে এই আর্থিক সহায়তা দেওয়া হল। আমাদের আরো সার্ভে চলছে। প্রচুর দোকানপাট ভাঙচুর করা হয়েছে, লুঠ হয়েছে, সেরকম অভিযোগ ও আমরা পেয়েছিলাম। সেই সব অভিযোগ খতিয়ে দেখার কাজ চলছে।”

তিনি আরও বলেন “বর্তমানে সেই সব পরিবারের সাহায্য করা হয়েছে যাদের বাড়িঘর ভাঙচুর করা হয়েছিল। সরকারের পক্ষ থেকে প্রত্যেক ৩০৯টি পরিবারের সদস্যদের জন্য ৬,৩০০ টাকার চেক পাঠানো হয়েছে, সেই টাকা আমরা আজকে ক্ষতিগ্রস্তদের হাতে তুলে দিচ্ছি। এখন ভাটপাড়ায় বড় কোন আইনশৃঙ্খলা জনিত সমস্যা নেই। মঙ্গলবার রাতে মানিকপীর এলাকায় একটা বোমাবাজির ঘটনা ঘটেছিল। সেখানে দ্রুত আমাদের কর্মীরা পৌঁছায়। ওই এলাকায় বর্তমানে পর্যাপ্ত পুলিশ ফোর্স নামানো হয়েছে। এছাড়া বড় কোন অশান্তি হয়নি। দোকান বাজার সবই এখন খুলছে।”

পুলিশ সুপার বলেন “আমাদের অতিরিক্ত পুলিশ বাহিনী ভাটপাড়ার সর্বত্র মানুষের নিরাপত্তার জন্য ২৪ ঘণ্টা কাজ করছে। এখনো ১৪৪ ধারা জারি রয়েছে। তবে আর দুই তিনদিনের মধ্যে এখানকার পরিস্থিতি আরো স্বাভাবিক হয়ে যাবে । আশা করছি আমরা আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেব, হয়ত শীঘ্রই ১৪৪ ধারা প্রত্যাহার করা হবে।”

ভাটপাড়ায় গত দুই মাস ধরে লাগাতার সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে । মূলত এই রাজনৈতিক সংঘর্ষের ঘটনায় অসংখ্য বাড়ি, ঘর, দোকানপাট ভাঙচুর হয়েছে, লুঠপাট হয়েছে। বহু দরিদ্র পরিবার আতঙ্কে ভাটপাড়া শহর ছেড়ে অন্যত্র চলে গেছেন। ভাটপাড়ার উত্তপ্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সচেষ্ট হয়েছে রাজ্য প্রশাসনও। ভাটপাড়া কান্ডের জেরে বারাকপুর পুলিশ কমিশনারেটের চারজন পুলিশ কমিশনারকে ইতিমধ্যেই বদল করেছে রাজ্য প্রশাসন। ভোট পরবর্তী সময়ে ভাটপাড়ায় সংঘর্ষের মাত্রা অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে।

সব মিলিয়ে ভাটপাড়ায় সরকারি হিসেব অনুসারে রাজনৈতিক সংঘর্ষের বলি হয়েছেন ৫ জন। বেসরকারি হিসেবে ভাটপাড়ায় মৃতের সংখ্যা অন্তত ১০ জন । সম্প্রতি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নবান্নে বৈঠক করেন প্রশাসনিক কর্তাদের সঙ্গে । তিনি প্রশাসনকে নির্দেশ দেন দ্রুত শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে হবে ভাটপাড়ায়, রাজনৈতিক রঙ না দেখে অবিলম্বে ভাটপাড়ায় যে কোন দুষ্কৃতীকে গ্রেফতার করার নির্দেশ দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই সঙ্গে ভাটপাড়া এলাকায় আইনশৃঙ্খলা জনিত সমস্যা মেটাতে ভাটপাড়া পুলিশ ফাঁড়িকে বদলে নতুন থানা তৈরী করেন। বারাকপুরের নতুন পুলিশ কমিশনার করে পাঠানো হয় মনোজ বার্মাকে।