রাজকোট: ৩০ বছর পর বাংলার ফের রঞ্জি ট্রফি জয়ের স্বপ্ন ক্রমশ ফিকে হচ্ছে৷ রঞ্জি ট্রফি ফাইনালে বাংলার বিরুদ্ধে ক্রমশ জাঁকিয়ে বসছে সৌরাষ্ট্র৷ সোমবার ম্যাচের প্রথম দিন পাঁচ উইকেট তুলে বাংলা ম্যাচ ফিরলেও মঙ্গলবার দ্বিতীয় দিনে প্রথম দু’টি সেশনে কোনও উইকেট তুলতে পারল না বাংলার বোলাররা৷

মঙ্গলবার চা-বিরতিতে ৫ উইকেট হারিয়ে ৩৩৯ রান তুলেছে সৌরাষ্ট্র৷ অর্থাৎ দিনের প্রথম দু’টি সেশনে কোনও উইকেট না-হারিয়ে ১৩৩ রান যোগ করেছেন চেতেশ্বর পুজারা ও অর্পিত ভাসাবাদা৷ সোমবার পাঁচ উইকেটে ২০৬ রানে শেষ করেছিল সৌরাষ্ট্র৷ ম্যাচের প্রথম সেশনে বাংলার বোলাররা কোনও উইকেট তুলতে না-পারলেও পরের দু’টি সেশনে পাঁচ উইকেট তুলে নিয়ে বাংলাকে ম্যাচে ফিরিয়েছিলেন বোলাররা৷ কিন্তু দ্বিতীয় দিন প্রথম দু’টি সেশনে কোনও উইকেট তুলতে পারেননি ঈশান পোড়েল, মুকেশ কুমারা৷

ইতিমধ্যেই সেঞ্চুরি করেছেন ভাসাবাদা৷ সেমিফাইনালে গুজরাতের বিরুদ্ধে দলের কঠিন পরিস্থিতিতে ১৩৯ রানের ইনিংস খেলে সৌরাষ্ট্রকে ফাইনালে তুলেছিলেন ৩১ বছরের এই বাঁ-হাতি৷ আর ফাইনালে বাংলার রঞ্জি জয়ের পথের কাঁটা হয়ে উঠলেন সেই ভাসাবাদা৷ এদিন ব্যক্তিগত ২৯ রানে খেলা শুরু করে প্রথমশ্রেণির ক্রিকেটে অষ্টম সেঞ্চুরিপূর্ণ করেন অর্পিত৷ চা-বিরতি পর্যন্ত ১০৬ রানে ব্যাটিং করছেন সৌরাষ্ট্রের এই বাঁ-হাতি৷

হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করেছেন চেতেশ্বর পুজারাও৷ গতকাল দিনের অন্তিমলগ্নে ব্যাটিং করতে নেমে অসুস্থ হয়ে ব্যক্তিগত ৫ রানে প্যাভিলিয়নে গিয়েছিলেন ভারতীয় দলের এই টেস্ট স্পেশালিস্ট ব্যাটসম্যান৷ কিন্তু এদিন সকাল থেকেই মাঠে নেমে সৌরাষ্ট্রের ইনিংসকে এগিয়ে নিয়ে যান পূজারা৷ নিজে মন্থর ইনিংস খেললেও অর্পিতকে যোগ সঙ্গত দেন তিনি৷ ১৯১ বলে মাত্র চারটি বাউন্ডারি মেরে হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন পুজারা৷ চা-বিরতিতে ৫১ রানে ক্রিজে রয়েছেন তিনি৷ সৌরাষ্ট্রের এই জুটি দ্রুত ভাঙতে না-পারলে রাজকোটে ব্যাট করতে নামার আগেই বাংলার রঞ্জি জয়ের স্বপ্ন শেষ হয়ে যায়৷