কলকাতা: বাংলায় আক্রান্তের সংখ্যা নিজেই নিজের রেকর্ড ভাঙছে৷ গতকাল একদিনে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৬২৪ জন৷ সেই সংখ্যা এদিন বেড়ে দাঁড়াল ৬৫২ জনে৷ এর ফলে আক্রান্তের সংখ্যা হল মোট ১৮,৫৫৯ জন৷ মঙ্গলবার রাজ্য সরকারের বুলেটিন অনুযায়ী,গত ২৪ ঘন্টায় অর্থাৎ সোমবার থেকে মঙ্গলবার সকাল ৯ টা পর্যন্ত করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৬৫২ জন৷ যা একদিনের হিসেবে সর্বোচ্চ৷

নতুন করে মৃত্যু হয়েছে ১৫ জনের৷ ফলে মৃতের সংখ্যা মোট ৬৬৮ জন৷ তবে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা ৫,৭৬১ জন৷ গত ২৪ ঘন্টায় সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ৪১১ জন৷ ফলে এই পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১২,১৩০ জন৷ যা শতাংশের হিসেবে ৬৫.৩৫ শতাংশ৷ তবে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাটা ফের বাড়ছে৷ গতকাল ছিল ৫,৫৩৫ জন৷ সেটা বেড়ে আজ মঙ্গলবার হল ৫,৭৬১৷

অর্থাৎ একদিনে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাটা ২২৬৷ গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু হয়েছে আরও ১৫ জনের৷ এই পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৬৬৮ জনে৷ যে ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে, এদের মধ্যে কলকাতারই ৭ জন৷ উত্তর ২৪ পরগনার ২ জন৷ হাওড়ার ২ জন৷ হুগলির ১ জন৷ বাকুড়া ১ জন৷ বীরভূম ১ জন৷ দার্জিলিং এর ১ জন৷ বাংলায় নতুন করে ৯৬১৯ টি টেস্ট হয়েছে৷ ফলে এই পর্যন্ত মোট টেস্ট হয়েছে ৪ লক্ষ ৮৮ হাজার ৩৮ জনের৷

প্রতি মিলিয়নে টেস্ট ৫৪২৩ জন৷ যা শতাংশের হিসেবে ৩.৮০ শতাংশ৷ এই মুহূর্তে সরকারি এবং বেসরকারি মিলিয়ে রাজ্যে ৫১টি ল্যাবরেটরিতে করোনা টেস্ট হচ্ছে৷ আরও ৩টি ল্যাবরেটরি অপেক্ষায় রয়েছে৷ বাংলায় ৭৮ টি সরকারি এবং বেসরকারি হাসপাতালে আইসোলেশন শয্যা তৈরি করা হয়েছে৷ এর মধ্যে সরকারি ২৫ টি হাসপাতাল ও ৫৩ টি বেসরকারি হাসপাতাল রয়েছে৷

হাসপাতালগুলিতে আইসিইউ শয্যা রয়েছে ৯৪৮টি, ভেন্টিলেশন সুবিধা রয়েছে ৩৯৫টি৷ কিন্তু সরকারি কোয়ারেন্টাইন সেন্টার রয়েছে ৫৮২টি৷ এই পর্যন্ত শুধু কলকাতায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৩৭৯ জন৷ মোট আক্রান্ত ৫,৯৮৪ জন৷ এর মধ্যে গত ২৪ ঘন্টায় শহরে আক্রান্ত ২৩১ জন৷ নতুন করে ছাড়া পেয়েছেন ১৪৪ জন৷ ফলে কলকাতায় মোট ছাড়া পেলেন ৩৭৫৩ জন৷ অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা ১৮৫২ জন৷

কলকাতায় করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি হওয়া নিয়ে সোমবার নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে ব্যাখ্যা গিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর কথায়, ‘কলকাতায় করোনা রোগীর সংখ্যা বেশি দেখানো হচ্ছে। কলকাতার হাসপাতালগুলিতে জেলার রোগীরাও ভরতি হচ্ছেন। কলকাতার হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার দরুণ রেকর্ডটা কলকাতার বলে দেখানো হচ্ছে।’

এই প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ‘কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ, বাঙুর-সহ অন্য হাসপাতালগুলিতে শুধু কলকাতার রোগীরাই ভরতি হচ্ছেন না। জেলা থেকে বহু রোগী ভর্তি হচ্ছেন। কলকাতা লাগোয়া হাওড়া হাসপাতালেও একই ঘটনা ঘটছে। জেলার রোগী করোনা আক্রান্ত হলেও সেটা কলকাতার বলে দেখানো হচ্ছে।’

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV