স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: পুলিশের অনুমতি ছাড়াই সোমবার মেট্রো চ্যানেলে ধর্নায় বসতে চলেছে প্রদেশ যুব কংগ্রেস৷ দলের এই কর্মসূচীর নেতৃত্বে থাকবেন বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান৷ যুব কংগ্রেসের সভাপতি সাদাব খানের হুঁশিয়ারি, ধর্নায় বাধা দিলে আদালতের দ্বারস্থ হবেন তাঁরা৷

বিরোধী দলগুলির বিরুদ্ধে সিবিআইয়ের অপব্যবহার ও চিটফান্ডে প্রতারিতদের টাকা ফেরতের দাবিতে ১১ ফেব্রুয়ারি থেকে ১৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মেট্রো চ্যানেলে ধর্না কর্মসূচী ছিল যুব কংগ্রেসের। অনুমতি চেয়ে লালবাজারের কাছে আবেদন করে তারা। শনিবার আবেদনটি করেন প্রদেশ যুব কংগ্রেস সভাপতি সাদাফ খান। আবেদনে লেখা হয়, সেখানে দিন কয়েক আগেই ধরনা কর্মসূচির আয়োজন করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে মাধ্যমিক পরীক্ষা চলায় ধরনামঞ্চে তাঁরা লাউড স্পিকার ব্যবহার করবেন না বলেও জানান আবেদনে।

কলকাতা পুলিশের কাছে করা কংগ্রেসের আবেদন

এমনকি রাস্তা আটকে কর্মসূচি পালন করা হবে না বলেও আবেদনে উল্লেখ করেন তাঁরা৷ কিন্তু তা সত্ত্বেও যুব কংগ্রেসের আবেদন গ্রাহ্য করেনি লালবাজার৷

আবেদন খারিজ করার পর কংগ্রেসের প্রেস বিজ্ঞপ্তি
‌এই মেট্রো চ্যানেলেই ধর্নায় বসেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা

কলকাতার পুলিশের বিরুদ্ধে দ্বিচারিতার অভিযোগ তুলে ক্ষোভে ফেটে পড়েছে প্রদেশ যুব কংগ্রেস৷ সাদাব খান বলেন, অনুমতি না দিলেও আমরা আজ মেট্রো চ্যালেনে ধর্নায় বসব৷রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনের অনুমতি না দিয়ে আসলে প্রতিবাদ করার অধিকারকে খর্ব করছে রাজ্য সরকার। দলের সিনিয়ার নেতাদের সঙ্গে আলোচনা চলছে৷ প্রয়োজনে আমরা আদালতেও যেতে পারি৷

মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর ধর্মতলার মেট্রো চ্যানেলে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ অথচ পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের বাড়িতে সিবিআই হানার প্রতিবাদে তিনিই মেট্রো চ্যানেলে ধরনায় বসে দেশ জুড়ে ঝড় তোলেন৷ মমতাকে দেখে প্রদেশ কংগ্রেসও মেট্রো চ্যানেলে ধর্নায় বসার কর্মসূচী নেয়৷ সেই কর্মসূচী থেকে একযোগে তৃণমূল ও বিজেপিকে আক্রমণ করার কৌশল ছিল তাদের৷ সোমবার যুব কংগ্রেস বিনা অনুমতিতে ধর্নায় বসতে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে৷