স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা : সল্টলেকে শিক্ষকদের আন্দোলন মঞ্চ থেকেই রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীকে আক্রমণ করলেন যাদবপুর কেন্দ্রের লোকসভার বিজেপি প্রার্থী অনুপম হাজরা। রবিবার এই মঞ্চ থেকে তিনি রাজ্য সরকারকে তুলোধনা করেন।

সল্টলেকের বিধান চন্দ্র রায়ের মূর্তি পাদদেশ অর্থাৎ ওয়াই চ্যানেলে আমরণ অনশনে বসেছেন উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারি টিচার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা । রবিবার দুপুরে সেই মঞ্চে আসেন বিজেপি নেতা অনুপম হাজরা। যদিও তিনি দাবি করেন একজন অধ্যাপক হিসেবেই শিক্ষক শিক্ষিকাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। তাদের এই আন্দোলন ন্যায্য আন্দোলন। এই বিষয়টি তিনি কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রীকে জানাবেন বলেও উল্লেখ করেন। রাজ্যের অপদার্থ শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগও দাবি করবেন বলে জানান তিনি।

তিনি আরও বলেন, ”যে রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী টুকে পিএইচডি করেন সেই রাজ্যের শিক্ষার অবস্থা আর কি হবে। একটু শিক্ষিত লোককে শিক্ষামন্ত্রী করলে রাজ্যের শিক্ষাক্ষেত্রে আজ এই অবস্থা হতো না।” পাশাপাশি তিনি মুখ্যমন্ত্রীকেও কটাক্ষ করেন। শিক্ষকদের আন্দোলনের মঞ্চ থেকে বলেন, ”মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন কিন্তু কালীঘাটের কালচার এখনও ভুলতে পারেননি। তাছাড়া কালীঘাটের ভদ্রমহিলার অবস্থা এখন খারাপ, তা না হলে এতক্ষণে আপনাদেরকে জল কামান দিয়ে তুলে দিত।” অনুপম হাজরার মতে, রাজ্য সরকার এতটাই অমানবিক যে, আন্দোলনকারীদের জন্য একটু খাবার জলেরও ব্যবস্থা করেনি। যদিও সব প্রশাসনিক জায়গায় জানিয়েই এরা আন্দোলনে নেমেছেন।

এই অনুপম হাজরা প্রথম তৃণমূল থেকে সাংসদ হয়ে রাজনীতিতে পা রাখেন। কিছুদিনের মধ্যেই বিদ্রোহী হয়ে ওঠেন তিনি। লোকসভা ভোটের ঠিক আগে বিজেপিতে যোগ দিয়ে যাদবপুরের টিকিট পান এই অধ্যাপক।

উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারি টিচার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশ ১৪ জন সহকর্মীর অবৈধ বদলির নির্দেশ বাতিল সহ একাধিক দাবিতে আন্দোলনে নেমেছেন। এদের মধ্যে প্রায় জন শিক্ষক আবার আমরণ অনশনে বসেছেন। হঠাৎ করে এদিন মৌসুমী রায় নামে একজন অনশনকারী অসুস্থ হয়ে পড়েন। সেই সময় ঘটনাস্থলে ছিলেন অনুপম রায়। তিনি নিজের গাড়িতে হাসপাতালে নিয়ে যান ওই অনশনকারীকে।