কলকাতা: ২০২৩ সালের মধ্যে নেমেছে বেঙ্গল কেমিক্যালস অ্যান্ড ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড ‘মিনিরত্ন’ সংস্থার তকমা আদায়ে উদ্যোগী হয়েছে৷ এরজন্য তার আগে ২০২২ সালের মধ্যে এটিকে একটি ঋণমুক্ত সংস্থা হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। মার্চেন্টস চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি আয়োজিত এক আলোটনা সভায় এসে এমনই বার্তা দিয়েছেন বেঙ্গল কেমিক্যালসের এমডি এবং ডিরেক্টর ফিনান্স পিএম চন্দ্রাইয়া৷

বেঙ্গল কেমিক্যাসলেক কর্তা জানান , ২০১৬-১৭ অর্থবর্ষ থেকেই ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে এই সংস্থাটি। ওই বছরেই সংস্থাটি নিট মুনাফার মুখ দেখে। গত আর্থিক বছরের হিসেব এখনও চূড়ান্ত হয়নি। তবে তিনি আশা করছেন, ২৬ কোটি টাকার নিট মুনাফা হবে এবং ১২১ কোটি টাকার আয় হবে। তবে সংস্থার নিট সম্পদ এখনও ঋণাত্মক অঙ্কে রয়েছে বলে জানান তিনি। তবে ব্যাংক ও সরকারের দেনা শোধ করা হচ্ছে এবং ২০২২ সালের মধ্যে ধার শোধ করতে সক্ষম হবেন বলে আশা প্রকাশ করেন। তারপরে ২০২৩ সালে মিনিরত্ন তকমা চাইবনে।

বণিকসভার এই অনুষ্ঠানের মূল বিষয় ছিল ক্ষুদ্র, ছোট ও মাঝারি শিল্পের বিকাশ। বণিকসভার কর্তা রিষভ কোঠারির বক্তব্য, ছোট ও মাঝারি শিল্প এখন দেশের অর্থনীতির মূল ধারক। তার বৃদ্ধির উপর নির্ভর করে দেশের অর্থনীতির অবস্থা। সেখানে ভোগ্যপণ্য বা এফএমসিজি ব্যবসা সবচেয়ে দ্রুত গতিতে বাড়ছে। সেই প্রসঙ্গের রেশ ধরে অ্যালেন গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ডাঃ জিপি সরকার জানান, এ রাজ্যে ছোট ও মাঝারি শিল্প চালিয়ে নিয়ে যাওয়া তুলনায় সহজ কাজ।