কলকাতা: মানুষকে বোকা বানাচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, এই অভিযোগে এবার সরব রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব। বৃহস্পতিবারই রাজ্যের পাওনা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রীর সেই চিঠির পরই এবার তাঁর বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন রাজ্য বিজেপির নেতারা।

রাজ্যে পুরভোটের আগে আবারও তৃণমূলনেত্রীকে নিশানা বঙ্গ বিজেপির। পুরভোটের ঠিক আগে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লেখা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলেই দাবি বিজেপির। এই ইস্যুতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কড়া সমালোচনা করেছেন বিজেপি নেতারা। মানুষকে ভুল বোঝাতেই মমতা ওই পদক্ষেপ করেছেন বলে দাবি বিজেপির।

প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লিখে মমতার দাবি, জাতীয় জিডিপির চেয়ে রাজ্যের জিডিপি ১০.৪ শতাংশ বেড়েছে। তবুও রাজ্যকে প্রাপ্য টাকা দিচ্ছে না কেন্দ্র। রাজ্যের বকেয়া ৫০ হাজার কোটি টাকা দিতে দেরি করছে কেন্দ্রীয় সরকার। ধীরে ধীরে কেন্দ্র টাকা দিচ্ছে রাজ্য সরকারকে। বিজেপির দাবি, পুরভোটের আগে ভুল তথ্য দিয়ে আসলে রাজ্যবাসীকেই বিভ্রান্ত করতে চাইছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

রাজ্যকে খোঁচা দিয়ে বিজেপি নেতা রাহুল সিনহার কটাক্ষ, ‘ঠিক পুরভোটের আগেই রাজ্য সরকারের হঠাৎ মনে হল যে কেন্দ্র টাকা পাঠাচ্ছে না৷ এটা শুধুমাত্র একটা রাজনৈতিক উদ্দেশেই করা হচ্ছে৷ মানুষকে ভুল বোঝানোর চেষ্টা হচ্ছে৷’ সবকিছু ঠিকঠাক চললে আগামী এপ্রিল মাসেই এরাজ্যে পুরভোট৷

২০২১ সালের বিধানসভা ভোটের আগে বিজেপি-তৃণমূল দু’পক্ষের কাছেই এই ভোট বড় পরীক্ষা। একদিকে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসির বিরোধিতাকে দূরে ঠেলে জনসমর্থন কতটা নিজেদের পক্ষে থাকছে, তা দেখতে মরিয়া গেরুয়া শিবির। অন্যদিকে, উন্নয়নকে হাতিয়ার করে আবারও রাজ্যের পুরসভাগুলিতে কর্তৃত্ব ধরে রাখতে চেষ্টার কসুর নেই শাসক তৃণমূলের।