পানাজি:আরব সাগরের তীরে গোয়াকে ১-০ হারিয়ে সন্তোষে চ্যাম্পিয়ন হল বাংলা৷ এ’নিয়ে ৩২ বার জাতীয় ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন হল তার৷ নতুন ফর্মাটে এই টুর্নামেন্ট শুরু হবার পর প্রথমবার কাপ ঘরে আনল পিকে-চূনির রাজ্য৷

এই ম্যাচ জিতে ৬ বছরের খরা কাটল অবশেষে৷ ২০১১ গুয়াহাটিতে বাংলাকে সন্তোষ ট্রফি চ্যাম্পিয়ন করেছিলেন সাব্বির আলি৷ তারপর আর বাংলা ফাইনালেই উঠতে পারেনি৷ মনোরঞ্জন ভট্টাচার্য, অলোক মুখোপাধ্যায়, শিশির ঘোষের মতো তারকাদের কোচ করেছিল আইএফএ৷ কিন্তু প্রত্যাশিত সাফল্য দিতে পারেননি কেউই৷ মৃদুল সেটা করে দেখালেন৷ এ বারও দল নিয়ে নানা ঝামেলা ছিল৷ সন্তোষের নতুন নিয়মে আই লিগের ফুটবলার খেলানো যায় না৷ ফলে আনকোরা কয়েকজনকে বেছেই টিম করেছিলেন মৃদুল৷ তার উপর চোট আঘাতে জর্জরিত বেশ কয়েকজন৷ এসব সমস্যা সত্ত্বেও গোয়ার ঘরের মাঠে তাদের অতিরিক্ত সময়ে হারিয়ে ফের সন্তোষ ট্রফি ঘরে তুলল কোচ মৃদুল বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছাত্ররা৷ গোটা ম্যাচে একাধিক সুযোগ নষ্ট৷ শেষপর্যন্ত ১১৯ মিনিটে মনবীর সিংয়ের বাঁ-পায়ের শটে ছ’বছরের খরা কাটল বাংলার৷ আর সেই গোলের সুবাদেই ৭১তম সন্তোষ ট্রফির ফাইনালে গোয়াকে তাদেরই ঘরের মাঠে চ্যাম্পিয়ন হল বঙ্গ ব্রিগেড। এই নিয়ে ছ’বার গোয়াকে সন্তোষের ফাইনালে হারাল বাংলা৷

কোচ মৃদুল  ম্যাচের পর বলেন, ‘ছেলেরা খুব ভাল খেলেছে৷আমার দলের প্রত্যেকেই ভাল খেলছে৷ওদের জন্য আমি গর্বিত৷’

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।