ইন্দোর: ঋত্ত্বিক চট্টোপাধ্যায়ের ঘূর্ণি ও শ্রীবৎস গোস্বামীর দাপুটে ব্যাটিংয়ে সৈয়দ মুস্তাক আলি টি-২০’র সুপার লিগে জয়ে ফিরল বাংলা৷ ঝাড়খণ্ডকে ৮ উইকেটের একতরফা ব্যবধানে পরাস্ত করেন মনোজ তিওয়ারিরা৷

সুপার লিগের প্রথম ম্যাচে রেলওয়েজকে পরাজিত করে বাংলা৷ সেই ম্যাচেও বাংলার হয়ে দুরন্ত ব্যাটিং করেন শ্রীবৎস৷ পরের ম্যাচে মহারাষ্ট্রের কাছে হার মানতে হয় তিওয়ারিদের৷ গোটা টুর্নামেন্টে দলের সামগ্রিক পারফরম্যান্সে উত্থান-পতন লেগে থাকলেও ঝাড়খণ্ডের বিরুদ্ধে ব্যাটে-বলে আগাগোড়া আধিপত্য দেখান বাংলার ক্রিকেটাররা৷

আরও পড়ুন: যুবির ব্যাটে ধোনির হেলিকপ্টার

টসে জিতে মনোজ প্রথমে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানান ঝাড়খণ্ডকে৷ নির্ধারিত ২০ ওভারে ঝাড়খণ্ড ৯ উইকেট হারিয়ে ১২৬ রান তোলে৷ ঋত্ত্বিক-শাহবাজের স্পিন জুটির সঙ্গে নবাগত পেসার আকাশ দীপ দুরন্ত অনবদ্য বোলিং করেন৷ জবাবে ব্যাট করতে নেমে বাংলা মাত্র ১৩ ওভারে ২ উইকেটের বিনিময়ে জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ১২৭ রান তুলে নেয়৷ ঝোড়ো হাফসেঞ্চুরি করেন শ্রীবৎস৷ তাঁকে যথাযোগ্য সঙ্গত দেন ঋদ্ধিমান সাহা৷

ঝাড়খণ্ডের হয়ে অনুকূল রায় সর্বাধিক ৩৭ রান করেন৷ ২৫ বলের ইনিংসে ১টি চার ও ২টি ছক্কা মারেন তিনি৷ এছাড়া বিরাট সিং ২৭ ও ইশাঙ্ক জাগ্গি ২৪ রান করেন৷ ঋত্ত্বিক চট্টোপাধ্যায় ৪ ওভারে মাত্র ১২ রানের বিনিময়ে ৩ উইকেট দখল করেনষ শাহবাজ আহমেদ নেন ২১ রানে ২ উইকেট৷ আকাশ দীপ ২৪ রান খরল করে ২টি উইকেট তুলে নেন৷ দিন্দা ও সায়ন ঘোষ নেন একটি করে উইকেট৷

আরও পড়ুন: রোহিত-ধাওয়ান ‘এয়ারস্ট্রাইকে’ অজিদের কঠিন টার্গেট দিল ভারত

বাংলার হয়ে শ্রীবৎস ৫০ বলে ৮৬ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন৷ তিনি ১২টি চার ও ১টি ছক্কা মারেন৷ ঋদ্ধিমান সাহা ২টি ছক্কার সাহায্যে ১৬ বলে ২৪ রান করেন৷ মনোজ ৭ রান করে আউট হন৷ অভিমন্যু ঈশ্বরণ ৫ রান করে নটআউট থেকে যান৷ দু’টি উইকেটই নিয়েছেন বরুণ অ্যারন৷