রাজকোট: কোয়ার্টার ফাইনালে অনবদ্য শতরান করে দলকে জিতিয়েছেন৷ ইডেনে কর্ণাটকের বিরুদ্ধে সেমিফাইনালে তাঁর দুরন্ত সেঞ্চুরি ক্রিকেটের লোকগাথায় জায়গা করে নিতে পারে৷ আরও একবার চাপের মুখে দলকে নির্ভরতা দিচ্ছেন অনুষ্টুপ মজুমদার৷ এবার ফাইনালে বাংলাকে টেনে নিয়ে যাচ্ছেন রুকু৷

চতুর্থ দিনের দ্বিতীয় সেশনে সুদীপ চট্টোপাধ্যায় ও ঋদ্ধিমান সাহার জমাট প্রতিরোধ ভেঙে বাংলাকে চাপে ফেলে দেয় সৌরাষ্ট্র৷ ছন্দে থাকা শাহবাজ আহমেদ খুব বেশিক্ষণ ক্রিজে কাটাতে পারেননি৷ তা সত্ত্বেও দিনের শেষে বাংলা খেতাবের লড়াইয়ে টিকে রয়েছেন অনুষ্টুপ মজুমদারের জন্যই৷

আরও পড়ুন: করোনায় আক্রান্ত জুভেন্তাস তারকা

চলতি রঞ্জি অভিযানে টেল এন্ডারদের নিয়ে দলকে বিপদের হাত থেকে উদ্ধার করা অভ্যাসে পরিণত করে ফেলেছেন রুকু৷ একই পথে হাঁটছেন ফাইনালেও৷ ঋদ্ধি ও শাহবাজের সঙ্গে ছোট ছোট দু’টি পার্টনারশিপের পর অর্ণব নন্দীর সঙ্গে জুটি বাঁধেন অনুষ্টুপ৷ সপ্তম উইকেটের জুটিতে ৯১ রান যোগ করে বাংলার রঞ্জি চ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বপ্নকে ধূলিসাৎ হতে দেননি তিনি৷

আপাতত সৌরাষ্ট্রের ৪২৫ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে বাংলা চতুর্থ দিনের শেষে তাদের প্রথম ইনিংসে ৬ উইকেটের বিনিময়ে ৩৫৪ রান তুলেছে৷ অর্থাৎ প্রথম ইনিংসের নিরিখে সৌরাষ্ট্রের থেকে আর ৭১ রানে পিছিয়ে রয়েছে বাংলা৷ হাতে রয়েছে ৪ উইকেট৷ ব্যক্তিগত হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করে ক্রিজে অপরাজিত রয়েছেন অনুষ্টুপ৷ তিনি ৮টি বাউন্ডারির সাহায্যে ১৩৪ বলে ৫৮ রান ব্যাট করছেন৷ সঙ্গে ৮২ বলে ২৮ রান করে নট-আউট রয়েছেন অর্ণব৷ তিনি ৩টি চার ও ১টি ছক্কা মেরেছেন৷

আরও পড়ুন: করোনা আতঙ্কে আইপিএলের আকাশে কালো মেঘ

পরিস্থিতি যেখানে দাঁড়িয়ে শেষ দিনের প্রথম সেশনেই ম্যাচের সম্ভাব্য ফলাফল নির্ধারিত হয়ে যাবে৷ বাংলা শিবিরের যাবতীয় আশা ভরসা এখন অনুষ্টুপ৷