চেন্নাই: বোলারদের দেওয়া প্ল্যাটফর্মে সোজা করে হাঁটতে পারলেন না বাংলার ব্যাটসম্যানরা৷ চিপকে তামিলনাড়ুকে ২৬৩ রানে বেঁধে রেখেও প্রথম ইনিংসে এগিয়ে থাকার সুবিধা নিতে পারল না মনোজ অ্যান্ড কোং৷ ১৮৯ রানে শেষ বাংলার প্রথম ইনিংস৷ অভিষেক রমনের দুরন্ত লড়াইয়ের সামনে বাকিদের অসহায় আত্মসমর্পণ ব্যাকফুটে ঠেলে দিল অরুণলালের ছেলেদের৷

প্রথম ইনিংসে ৭৪ রানে এগিয়ে থেকে দিনের শেষে দ্বিতীয় ইনিংসে এক উইকেট হারিয়ে ১২ রান তুলেছে তামিলনাড়ু৷ অর্থাৎ দ্বিতীয় দিনের শেষে ৮৬ রানে এগিয়ে তামিলনাড়ু৷ হাতে ৯ উইকেট৷ ব্যক্তিগত ২ রানে অভিষেক মুকুন্দকে প্যাভিলিয়নে ফেরান অশোক দিন্দা৷ সুতরাং চতুর্থ ইনিংসে রান তাড়া করে সরাসরি ম্যাচ জয় ছাড়া মনোজদের আর কোনও রাস্তা নেই৷ চিপকের বাইশ গজে তামিল বোলারদের বিরুদ্ধে কোনও প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারেননি বাংলার ব্যাটসম্যানরা৷ রান তাড়া করতে নেমে শুরু থেকে বাংলা ইনিংসে ধস নামে৷ মাত্র ৮০ রানে পাঁচ উইকেট হারিয়ে ধুঁকতে থাকে বাংলার ইনিংসকে একক লড়াইয়ে টেনে তোলার চেষ্টা করেন ওপেনার অভিষেক৷ কিন্তু এক প্রান্তে তিনি ধরে রেখে লড়াই চালালেও অন্য প্রান্তে ব্যাটসম্যানরা প্যাভিলিয়নে ফেরার মিছিলেন নাম লেখান৷

দুরন্ত লড়াই করেও অল্পের জন্য সেঞ্চুরিটা মাঠে রেখে আসেন অভিষেক৷ ৯৮ রানে থেমে যায় অভিষেকের লড়াই৷ ফলে মাত্র দু’রানের জন্য প্রথমশ্রেণির ক্রিকেটে তৃতীয় শতরানের স্বাদ পেলেন না বাংলার এই বাঁ-হাতি ওপেনার৷ বাংলা ইনিংসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ স্কোর শ্রীবৎস গোস্বামীর ১৯৷ এছাড়া ১৬ রান করে প্যাভিলিয়নের রাস্তা ধরেন অনুষ্টুপ মজুমদার৷ ক্যাপ্টেন মনোজ তিওয়ারির অবদান মাত্র ১ রান৷ এদিন রান পেলেন না সুদীপ চট্টোপাধ্যায়৷ অফ-ফর্মে থেকে সুদীপ আগের ম্যাচে কেরলের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় ইনিংসে ৩৯ রান করলেও এদিন শূন্য রানে প্যাভিলিয়নে ফেরেন৷ তামিলনাড়ুর হয়ে পাঁচটি উইকেট নেন বাঁ-হাতি স্পিনার রাহিল শাহ৷ চার উইকেট নিয়ে ডানহাতি পেসার এম মহম্মদ৷

৭ উইকেটে ২১৮ রানে এদিন খেলা শুরু করে ২৬৩ রানে শেষ হয় তামিলনাড়ুর ইনিংস৷ ব্যক্তিগত ৮১ রানে এদিন শুরু করে সেঞ্চুরি করে তবেই মাঠ ছাড়েন বাবা অপরাজিত৷ বাংলার সফলতম বোলার ঈশান পোড়েল৷ ২৭ ওভার হাত ঘুরিয়ে মাত্র ৪৮ রান দিয়ে পাঁচটি উইকেট নেন ঈশান৷ তিনটি উইকেট নেন প্রদীপ্ত প্রামাণিক৷

হিমাচলপ্রদেশ ও মধ্যপ্রদেশের বিরুদ্ধে রঞ্জির প্রথম দু’ম্যাচ থেকে ছ’ পয়েন্ট পেলেও ইডেনে তৃতীয় ম্যাচে কেরলের কাছে হার মানতে হয় মনোজদের৷ ব্যর্থতা থেকে শিক্ষা নিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত মিললেও চিপকেও ব্যাটিং ব্যর্থতা ফের প্রশ্নের মুখে দাঁড় করিয়ে দিল লালের ছেলেদের৷ ইশান পোড়েল, আমির গনি ও প্রদীপ্ত প্রামানিকের ত্রিফলা আক্রমণে তামিলনাড়ুকে তাদের ঘরের মাঠে চাপে ফেলেও তার সুবিধা নিতে ব্যর্থ বাংলা৷