লন্ডন: বেনের বীরত্বেই বিশ্বজয় ইংল্যান্ডর৷ এক বছর আগে আজকের দিনে ২০১৯ বিশ্বকাপ ফাইনালে বেন স্টোকসের দুরন্ত ৮৪ রান ইনিংসে ভর করে প্রথমবার ওয়ান ডে বিশ্বজয় সত্যি হয়েছিল ইংল্যান্ডের৷ বিশ্বকাপ ফাইনাল প্রথমবার গড়িয়েছিল সুপার ওভারে৷ সুপার ওভারও টাই হওয়ায় ‘বাউন্ডারি কাউন্ট ব্যাক রুল’ নিয়মে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয় ইংল্যান্ড৷

ইংল্যান্ডের বিশ্বজয়ের বর্ষপূর্তিতে এখন প্রকাশ পেয়েছে যে স্টোকস সুপার ওভারে মাঠে নামার আগে টেনশন কাটাতে একটি সিগারেট জ্বালিয়েছিল৷ ‘মর্গ্যানস মেন: দ্য ইনসাইড স্টোরি অফ ইংল্যান্ডের রাইজ ফ্রম ক্রিকেট ওয়ার্ল্ড কাপ হিউম্যানেশন টু গ্লোরি’ নামে একটি সদ্য প্রকাশিত বইয়ের একটি অংশ থেকে এই প্রকাশ পাওয়া গিয়েছে৷

নিক হোল্ট এবং স্টিভ জেমসের লেখা বইয়ের একটি অংশের উদ্ধৃতি দিয়ে স্টাফ.কম.নিউজিল্যান্ড তাদের আর্টিকেলে লিখেছেন: ‘লর্ডস শব্দের এক কৌতুক৷ পাবলিক অ্যাড্রেস সিস্টেম থেকে মিউজিক ভেসে আসছিল এবং পরিবেশ অস্বাভাবিক হয়ে উঠেছিল যখন ম্যাচ সুপার ওভারে পৌঁছেছিল৷ সাত সপ্তাহের টুর্নামেন্টের শেষ অপেক্ষা করেছিল ১২ বলের উপর৷ ইংল্যান্ড দলের ভাগ্য নির্ধারণ করছিল৷’

২৭ হাজার দর্শকে ঠাসা স্টেডিয়ামে সুপার ওভার শুরু হচ্ছিল এবং ক্যামেরা সব প্লেয়ারদের মুখকে এক এক করে ধরছিল৷ মাঠ থেকে লং রুম এবং ড্রেসিংরুম৷ বেন স্টোকস লর্ডসে অনেকবার খেলেছে‌৷ তিনি এখানকার প্রতিটি কোন জানেন৷ ইয়ন মর্গ্যান টেষ্টা করছিলেন ইংল্যান্ড ড্রেসিংরুমকে শান্ত রাখার৷ পরিকল্পনা আলোচনা করছিলেন৷ স্টোকস তার মধ্যেই শান্ত হতে চাইছিলেন ও ঘামছিলেন৷

তার আগে তিনি দু’ঘণ্টা ২৭ মিনিট ব্যাট করেছিলেন প্রচন্ড চাপের মধ্যে৷ স্টোকস কী করছিলেন? ইংল্যান্ড ড্রেসিংরুমের পিছনে চলে গিয়েছিলেন তিনি৷ সেখানে একটা ছোট্ট অফিস ছিল৷ সেখানে দাঁড়িয়েই তিনি সিগারেট জ্বালান স্টোকস এবং কিছুটা সময় নিজের মতো কাটান৷ সুপার ওভারে দুই দল ১৫ রান করে তোলে৷ ফলে সুপার ওভারও টাই হয়৷ ফলে ‘বাউন্ডারি কাউন্ট ব্যাক রুল’ নিয়মে ইংল্যান্ডকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হয়৷

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ